Thursday, January 21, 2016

ঝলমল

সেবার একটা মজার ব্যাপার হল।

সূর্যবাবু সকাল সকাল খুব খিটখিটে মেজাজ নিয়ে ঘুম ভেঙে উঠলেন। উঠেই তাঁর নজর পড়ল একদল রোদ্দুরের ওপর; সে বেচারিরা নিজেদের মনে ছাদে ঘুরঘুর করছিল।
-   “এইয়ো, তুম লোগ উধার বেওকুফ কা মাফিক সময় নষ্ট কিউ করতা? ইধার আও”।
তিরতির করে কাঁপতে কাঁপতে রোদ্দুরের দল সূর্য্যবাবুর সামনে এসে “হজুর” বলে সেলাম ঠুকলে।
-   “সকাল সকাল শোরগোল। বেয়াদবের দল”, আড়মোড়া ভাঙতে ভাঙতে হুমকি ঝাড়লেন সূর্য, “অভি নিকলো, তুরন্ত। তুরন্ত। আমার জন্য ঝলমল নিয়ে এসো”।
“জো হুকুম”, বলেই রোদ্দুরের দল সক্কাল ক্কাল বেরিয়ে পড়লে ঝলমলের খোঁজে।

তারা হাওয়ায় ছুটতে ছুটতে গান ধরলে;
“ঝলমল চাই ঝলমল
সূর্য্যির বাই; জোরে চল ভাই
ঝলমল কই ঝলমল!”

এমন সময়। এমন সময়। হল কী;
সে দলে যে সবার চেয়ে ছোট রোদ্দুর সে গানের মাঝে ঝপাৎ করে একটা বেমক্কা প্রশ্ন করে বসলে।
“কেয়া হ্যায় ইয়ে ঝলমল”?

তখন গান থামিয়ে ধেড়ে রোদ্দুরেদের সে কী হাসি; “এ ব্যাটা ঝলমল মানে জানে না, ওদিকে সুয্যিকাকাকে জো হুজুর কয়ে এসেছে, এ ব্যাটা আহাম্মক”।

“শোর কম”, নেতা রোদ্দুরের ধমকে হাসির দমক থামল শেষে। কচিরোদ কে নেতা রোদ বুঝিয়ে বললে,
-   “খোকা, ঝলমল থাকে রোদ্দুরের বুকে”।
-   “আমাদের বুকে?”
-   “হ্যাঁ”।
-   “আমার বুকেও?”
-   “হ্যাঁ, বিলকুল”।
-   “তাহলে ঝলমল খুঁজতে বেরোনোর বেওকুফি কেন?”
-   “জাদুস্পর্শের জন্য”।
-   “জাদু স্পর্শ?” খোকা রোদ অবাক হয়।
-   “তিলিস্মি স্পর্শ। যে ছোঁয়ায় রোদের অন্তরের ঝলমল দিন মন আলো করে বেরিয়ে আসে, ছড়িয়ে পড়ে”।
-   “ঝলমল বেরিয়ে আসে?”
-   “বিলকুল খোকা। মিঠে নরম ভালোবাসার মত ঝলমল ছড়িয়ে পরে”।
-   “তিলিস্মি স্পর্শ কোথায়? কী?”
খোকা রোদের হাত ধরে হাওয়ায় গা ভাসিয়ে ছুট দিলেন নেতারোদ।
রোদের দল শিরশির করে নেমে এলে হাওয়া বেয়ে।
“উয়ো দেখো খোকা, জাদু নরম, ওখানে ছুঁলেই আমরা ঝলমলিয়ে উঠব”।
কচি রোদ অবাক হয়ে দেখলে স্বপ্ন ভালোবাসার মত দাঁড়িয়ে। কালো কামিজ,  দোলানো কাশের মত হাসি, স্নেহের তুলতুলের গাল। কচি রোদ রিনরিনে হাসি হেসে গিয়ে গোত্তা খেলে সেই স্নেহের তুলতলে। অমনি তিলিস্মি স্পর্শে ঝলমল হয়ে সকাল ময় ছড়িয়ে পড়লে ঝলমলে নরম রোদ।

*********

-   বাবু, কথা বলছিস না কেন?
-   হুঁ।
-   কথা বলছিস না কেন?
-   হুঁ?
-   তুম বাত কিউ নহি করতা?
-   হম দেখতা হ্যায়।
-   কেয়া দেখতা?
-   তোর গালের আলোয় রোদ ঝলমলিয়ে উঠছে।
-   তুমি বেওকুফ।
-   তুমহারা বেওকুফ।
-   মেরা বেওকুফ।

2 comments:

Anonymous said...

এই বিরল লেখা উপহার দেওয়ার জন্য কোন মন্তব্যই যথেষ্ট নয়। হাজার সেলাম।

Anonymous said...

"ঝলমল" শুধু ঝলমল করছে না- আলোয় চোখ ধাঁধিয়ে দিচ্ছে। আবার পড়লাম আবার মন্তব্য করতে বাধ্য হলাম।

ধপাস

সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। বহুক্ষণ পর আমার পড়া একটা প্রবল 'ধপ...