Wednesday, January 4, 2017

ক্যান্ডিডেট

- আপনার বায়োডেটা বেশ ইম্প্রেসিভ্‌।

- থ্যাঙ্ক ইউ স্যার। ও'টা আমার নিজের হাতে টাইপ করা। বাড়ির কম্পিউটারে। প্রিন্ট নিতে অবশ্য সুপারনেট সাইবার ক্যাফেতে যেতে হয়েছিল। আমাদের বাড়ির পাশেই, জাস্ট আট দশ পা।

- ডিটেইলিঙের দিকে আপনার একটা ন্যাক আছে দেখছি।

- এইটে আমি পেয়েছি মূলত করবেট পড়ে। শিকারি মানুষ, ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র এলিমেন্টের প্রতি ওঁর নজর বেশ সমীহ করার মত।

- করবেট আপনার প্রিয় মিস্টার সেন?

-  আমায় অমিয় বলেই ডাকবেন প্লীজ। আমি আপনার থেকে অন্তত বারো বছরের ছোট। নাকি তেরো? ডেফিনিটলি নট মোর দ্যান চোদ্দ।  অবিশ্যি, এজ গ্যাপটা আজকাল খুব ইলিউসিভ জায়গায় চলে গিয়েছে। যাক, করবেটের কথা বলছিললাম। তবে শুধু করবেট কেন? বিভূতিভূষণ টু বুদ্ধদেব গুহ; সমস্তই গুলে খাওয়া। আসলে জঙ্গল আমার বড্ড প্রিয়। অবিশ্যি আমার আর আপনার বাসও তো জঙ্গলেই। তাই না স্যার?

- জঙ্গল?

- কলকাতাকে জঙ্গল না বলে কোনও উপায় আছে?

- আচ্ছা, আপনি প্রোফাইলটা সম্বন্ধে ওয়াকিবহাল তো?

- পুরোপুরি। ইনফ্যাক্ট, আমার স্ট্রেন্‌থের সাথে খাপে খাপ। আই মিন, নিজেকে অপটিমাইজ করতে পারব বলে আমার বিশ্বাস।

- কোনও রেকমেন্ডেশন লেটার টেটার...।

- বিনুদা নিজে লিখে দিয়েছেন।

- বিনুদা?

- বিনয় হালদার।

- এমএলএ বিনয় হালদার?

- প্লাস কয়লা টাইকুন। ওঁর কথাই বলছি।  ওর সুপারিশের চিঠি আমার বায়োডেটার সঙ্গেই অ্যাটাচ করা, বারো নম্বর অ্যানেক্সচার।

- গুড। কাজটা কিন্তু একটু সিরিয়াস। আর কনফিডেনশিয়াল।

- যে কোনও ব্যাপারেই অতিরিক্ত সিরিয়াস হয়ে যাওয়াটা আমার একটা বদরোগ স্যার। যেমন ধরুন, গোঁফ ছাটতে আমি স্কেল ইউজ করি। বা ধরুন ক্রিকেট দেখতে বসি ডায়রি নিয়ে, যাতে নিজে থেকে স্কোর রেকর্ড করতে পারি। চ্যানেলের স্কোরকার্ডকে অন্ধ বিশ্বাস করব এমন বান্দা আমি নই। আর কনফিডেনশয়াল ব্যাপারে আই অ্যাম লাইক আ ফায়ারপ্রুফ সেফ্‌। আমার শ্বাশুড়ি, বেলাগাছিয়ায় থাকেন আমার অডিটর শ্বশুরমশাই আর আমার প্রফেসর বড় শালার সাথে। এমনিতে নাইস লেডি। রান্নার হাত ফেলনা নয়, পোস্তটা তো রিমার্কেবল। যে'টা বলছিলাম। আমার মায়ের একটা স্পেশ্যাল রেসিপি আছে বুঝলেন। মাটন আলাদীন, একটু আরব্য ট্যুইস্টে অমৃত। তো আমার শ্বাশুড়ি আমায় দু'বছর ধরে পারস্যু করছেন রেসিপিটার জন্য। একবার তো পুজোয় আমায় স্যুইস ঘড়ি অফার করে বসলেন, ওভার অ্যান্ড অ্যাবভ আদ্দির পাঞ্জাবি। অফ কোর্স অ্যাস ব্রাইব। ঘড়িটা নিলেও রেসিপির ব্যাপারে মায়ের ট্রাস্ট বিট্রে করিনি। এমন কী মিসেস্‌কেও রেসিপীটা বলে দিইনি। বুঝতেই পারছেন স্যার, মা মেয়ের কেমিস্ট্রি কোনও কনফিডেনশিয়লিটির তোয়াক্কা করে না।

- আই সী। কোয়াইট অ্যাপ্রিশিয়েবল। দেখুন এখানে মাইনেকড়ি কিন্তু তেমন সুবিধের নয়। যে ছেলেটি ছেড়ে গেছে তার মূল গ্রিভান্স টাকাপয়সাতর ব্যাপারেই ছিল।

- মাইনেকড়ি নিয়ে মাথা ঘামানোর লোক যে আমি নই সে'টা আমার ফ্যামিলি ট্রি স্টাডি করলেই ধরতে পারবেন স্যার।  তিন জেনারেশন মিলে চার জন সন্ন্যাসী হয়ে গেছেন। বাবা নিজে সাত্যিক মানুষ ছিলেন, বেশি টাকার লোভ তাকে নকুলদানার ডিলারশিপ থেকে কেরোসিনের ডিপোর দিকে ঠেলতে পারেনি কোনওদিন। সেজকাকা নক্সাল করেছিল আড়াই মাস।

- আই সী। বেশ ইম্প্রসিভ। আপনার আগে অবিশ্যি আরও জনা দশেকের ইন্টারভিউ নেওয়া হয়ে গেছে। ফাইনাল খবর আগামীকালের মধ্যে...।

- খুব ভালো করেছেন আমায় ছাড়াও অন্য ক্যান্ডিডেটদের ইন্টারভিউ নিয়ে। মুড়ি না চিবুলে মুড়কির স্বাদ টের পাবেন কী করে বলতে পারেন? মাসলোর পিরামিডের মাথায় তো আর হেলিকপ্টারে করে নামতে পারবেন না। নীচ থেকে ধাপে ধাপে উঠে যেতে হবে। হুড়োহুড়ি করেছেন কি ক্যালামিটি।

- বেশ। আপনার ইন্টারভ্যিউ এখানেই শেষ। আপনার কোনও প্রশ্ন না থাকল আপনি এখন আসতে পারেন।

- প্রশ্ন একটা ছিল স্যার।

- বলুন।

- আপনাদের ওয়াশরুমে হ্যান্ডওয়াশটা জল দিয়ে ডাইলুট করা আছে। সামান্য টু পাইস বাঁচাতে গিয়ে হাইজিনে কম্প্রোমাইজটা বড্ড বেশি হয়ে যাচ্ছে না?

- আমাদের অ্যাডমিন ডিপার্টমেন্টে খোঁজ নেব। আপনি কাল ফোন করে বরং জেনে নেবেন, হ্যান্ডওয়াশটা ডাইলুট করা কেন হয়েছে।

- চমৎকার। সেকেন্ড হাফের দিকে ফোন করব তো স্যার?

- বেশ।

- তাহলে ওই আড়াইটে থেকে তিনটের মধ্যে করব। সাড়ে তিনটে থেকে একটা ম্যাটিনির টিকিট কাটা আছ।

- গুড বাই।

- ওকে। আসি স্যার। আর ইয়ে, চাকরীর কনফার্মেশনটা ফোনে নয়, চিঠিতেই দেবেন। কেমন? অন ব্ল্যাক অ্যান্ড হোয়াইট থাকলে সুবিধে। মিডল ক্লাস পারস্পেক্টিভ, বুঝতেই পারছেন।

- অফ কোর্স। এবার আসুন। পরের ক্যান্ডিডেট অপেক্ষা করছেন।

- ওহ হো। বটেই তো, বটেই তো। একবার ডেকে নেওয়া হয়েছে যখন ওদের ইন্টারভিউ না নিলে খারাপ দেখাবে। আপনি বরং সে পাট চুকিয়ে নিন। আমি আসি। আর হ্যান্ডওয়াশের গড়বড়টা একটু দেখবেন স্যার, কেমন? মনে একটা খুঁতখুঁত নিয়ে গেলাম।

No comments: