Tuesday, July 7, 2015

ওম

-ওম শান্তি। ওম শান্তি। ইধার আ বেটা। ইধার আ।

-প্রণাম নেবেন বাবা।

-শম্‌সান কালী মাতা তেরা মঙ্গল করে। ওম শান্তি।

-বাবা আমার নাম...।

-চোপ! ত্রিলোক ভ্রমণ করিয়ে এসেছি আমি। তু কেয়া সমঝা রে মুর্খ? আমি তোর নাম-পতা-খবর জানি না? আমি তোর নাম জানি। তোর পতা জানি। তুই রেলওয়ে অফিসের ক্লার্ক আছিস সো জানি। তুই আমার শরণে তোর পত্নীর কথায় বাধ্য হয়ে এসেছিস, আমি সো ভি জানে। ওম শান্তি।

-আপনি সব জানেন বাবা? কী ভাবে?

-বেটা, যো ওম কো জানতা হ্যায় ও সব কুছ জানতা হ্যায়। ওম শান্তি। 

-বাবা, ওম কে তো আমিও স্পষ্ট জানি। 

-অরে মুর্খ! সনসার মে রেহকে, তুই ওম কা সম্‌তা পেহচানবি কী করে?

-সংসারে থেকেই যে আস্‌লি ওমকে চেনা যায় বাবা।

- কেয়া মতলব? ত্রিলোক ভ্রমণ করিয়ে, ত্রিকাল জয় করিয়ে আমি ওমকে 
চিনলাম। আর তুই, সংসারি, ব্যাটা রেল অফিসের ক্লার্ক, বঙ্গালী, তুই চিনলি ওম? বতা মুঝে ফির, কেয়া হ্যায় ওম!

-বাবা, আত্মার শান্তি, জীবনের মোক্ষ হল ওম।

-বহুত খুব। লেকিন হ্যায় ক্যা চিজ ওম? খুলকে বতা! 

-বলবো?

-জরুর বলবি! 

-ডিসম্বরের রবিবারে; বুঝলেন কিনা বাবা। খাসির মাংসের ঝোল দিয়ে চাট্টি ভাত খেয়ে; বুঝতেই পারছেন বাবা। দুপুরে সুড়ুত করে লেপের তলায় ঢুকে পড়ে যে উষ্ণতা লাভ হয়, তাকেই ওম বলে বাবা। ওমকে আমি চিনবো না তো কে চিনবে বাবা?

-বেটা, তু যা। চলা যা।

-চলে যাব? বৌ ভেজলে যে, আপনার কাছে জ্ঞান লেনে কে লিয়ে।

-মেরে পাস ভি ওম, তেরে পাস ভি ওম। অউর তেরা ওম কা শক্তি মেরা ওম সে জিয়াদা হ্যায় বেটা। ইধার সে চলা যা। চলা যা।

No comments: