Saturday, July 25, 2015

শনিবারের অফিস

- স্যার, একটা কথা ছিল।

- আবার কী কথা শুভ্র? আই টোল্ড ইউ। গেট দ্য এম-আই-এস রেডি এস্যাপ।

- না মানে...কথা তেমন নয়। জাস্ট একটা চিঠি দেওয়ার ছিল।

- চিঠি? হোয়াট চিঠি?

- ওই। রেসিগনেশনের।

- রেসিগ...? হোয়াট? চালাকি করছ নাকি?

- না স্যার। সিরিয়াস।

- কী ব্যাপার? টেল মি ক্লিয়ারলি। আই ডোন্ট হ্যাভ টাইম ফর দিস ননসেন্স।

- না মানে। এই ভাবে প্রতি উইকেন্ডে আপনি অফিসে ডেকে নেবেন। আমার একটা ফ্যামিলি লাইফ আছে স্যার। এটা চলতে পারে না।

- হোয়াট দ্য হেল ইজ দ্যাট সাপোজ্‌ টু মিন শুভ্র? আমিও অফিস আসি উইকেন্ডে।

- আপনি আসেন কারণ আপনার ফ্যামিলি অন্য শহরে থাকে। ইউ হ্যাভ নাথিং টু ডু হিয়ার সিন্স ইউ আর আ ফোর্সড ব্যাচেলর। কিন্তু আমার ফ্যামিলি আমার সাথে থাকে। অদরকারী কাজের জন্য হুড়মুড় করে শনি রবি অফিস আসা। টূ মাচ স্যার। 

-ইউ আর অ্যান ইডিয়ট। আমার আর কিছু বলার নেই। তোমার মত লোক আসবে যাবে, কোম্পানি ডাজন্‌ট বদার। যদি তুমি ভেবে থাক যে আমায় ব্ল্যাকমেল করবে দেন লেট মি টেল ইউ ইউ আর মেসিং উইথ দ্য রং পার্সন।

- মেস্‌ টেস্‌ করছি না স্যার। যাক। কথায় কথা বাড়ে। আপনি অকারণে উত্তেজিত হচ্ছেন। আপনার চোখ মুখ লাল হয়ে গেছে দেখছি। আপনি তো আবার হাইপার টেনশনে ভোগেন। অত এক্সাইটেড হবেন না। 

- শাট আপ অ্যান্ড গেট আউট। নাউ।

- যাচ্ছি যাচ্ছি। শুধু আমার রেসিগনেশন লেটারটা দু'কপি দিয়েছি। এক কপি যদি সই করে অ্যাকনলেজ করে দিতেন স্যার। 

- এই নাও, আই হ্যাভ পুট মাই ইনিশিয়ালস। নাউ গেট আউট!

- একবারও চিঠিটা না পড়ে অ্যাকনলেজ করে আমার মুখে ছুঁড়ে মারাটা কী ঠিক হল স্যার? 

- তোমার মত কর্পোরেট স্কামের ঘ্যানঘ্যানে চিঠি পড়ার চেয়ে আই হ্যাভ বেটার থিংস টু ডু মিস্টার শুভ্র দাসগুপ্তা।   তোমার হালত রাস্তার কুকুরের মত হবে, ডু ইউ নো দ্যাট?  এই এস্টাব্লিশ্‌ড চাকরী ছেড়ে কী করবে ভেবেছ?

- একটা বিজনেস প্ল্যান ছিল। প্রায় তৈরিই ছিল।

- প্ল্যান? রিয়েলি?

- টোটালি। সমস্ত কিছু রেডি রেখেছিলাম। কিন্তু আর করা হল কই।

- হোয়াট ডু ইউ মিন?

- আরে বাইকে অফিস আসছিলাম আজ। এত বৃষ্টি হয়েছে সকালের দিকে স্যার; রাস্তায় জল থই থই। ক্রমাগত আপনি মোবাইলে তাড়া দিচ্ছিলেন। ওই। সামান্য অন্যমনস্ক হতেই বাইকটা স্কীড করল। আর তখনি পিছন থেকে একটা স্টেট বাস এসে পিষে দিয়ে গেল বুঝলেন। স্পটেই চলে যেতে হলে। বডিটা মর্গের দিকে রওনা হতেই আমি চলে এলাম, আফটার অল লাইফের শেষ ইম্পরট্যান্ট কাজটা পেন্ডিং ছিল; রেসিগনেশন লেটারটা আপনাকে অফার করে যাওয়া। এখন আমি ঝাড়া হাত পা। অবিশ্যি, হাত পা আর এগজ্যাক্টলি নেই।

-শুভ্র...শুভ্র...ইউ...ইউউউউউউউ...

-ও কী! কী হল স্যার। এ কী! আপনার মুখ দিয়ে  গ্যাঁজলা বেরোচ্ছে কেন? এত নার্ভাস হচ্ছেন কেন স্যার! কী হল!

**   

" মিস্টার সাহা শুধু একজন বস্‌ ছিলেন বললে ভুল হবে। হি ওয়াজ আ মেন্টর টু। ওনার কাজের ধরণ, ওনার এমপ্লয়ি ওয়েলফেয়ারের প্রতি ফোকাস; এক কথায় যাকে বলে ইন্সপায়ারিং। ওনার এই আচমকা চলে যাওয়া এই কোম্পানির যে প্রবল ক্ষতি হল, তার পূরণ হওয়ার নয়। কিন্তু ব্যক্তিগত ভাবে আমার যে ক্ষতি হল, সেই ব্যথা হয়ত আরও অনেক বেশী ইন্টেন্স; আমার বারবার মনে হচ্ছে আমি দ্বিতীয় বারের জন্য পিতৃহারা হলাম। মিস্টার সাহার সঙ্গে আমার সম্পর্কটা যতটা না বস ও সাবর্ডিনেটের; তার চেয়েও বেশী ছিল পিতা ও পুত্রের। ইট আজ অ্যান ইরিপেরেব্‌ল পার্সোনাল লস। মারা যাওয়ার দিনই কয়েক ঘণ্টা আগে আমায় ডেকে পাঠান। ওনার নিজের সই করা আমার এই আচমকা প্রমোশনের চিঠিটা আমাকে দিয়ে আমায়  বুকে জড়িয়ে ধরেন তিনি।  তিনি আমায় বলেছিলেন যে আমি নাকি দ্য বেস্ট গাই টু লিড দ্য মার্কেটিং টিম। এত বড় জাম্প আমি স্বপ্নেও ভাবতে পারিনি। আশা করি আমি ওঁনার বিশ্বাসের মর্যাদারক্ষা করতে পারব। খবরটা পেয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে সেদিন আমি স্বার্থপরের মত অফিস ছেড়ে বেরিয়ে গেছিলাম আমার বাড়িতে সেই খবরটা জানাতে; ইন ফ্যাক্ট মিস্টার সাহাই আমায় বলেছিলেন "শুভ্র, শনিবারে অফিসে বসে না থেকে শেয়ার দ্য বিগ নিউজ উইথ ইওর ফ্যামিলি ইন পার্সন"। আমি ওনাকে প্রণাম করে বেরিয়ে এসেছিলাম। আর সেদিনই বিকেলের দিকে এই বীভৎস খবরটা পাই। আমার এত আফসোস হয়; মনে হয় আমি যদি সেই শনিবারের ফাঁকা অফিসে মিস্টার সাহাকে একলা ফেলে বাড়ি চলে না গিয়ে ওঁর সঙ্গে থাকতাম- তাহলে হয়তো ওঁর ওই হার্ট অ্যাটাকের সময় কিছু একটা করতে পারতাম। কিন্তু আমি থাকতে পারিনি। ডেস্টিনি ক্যান বি সো সো ক্রুয়েল। ওঁনার আত্মার চিরশান্তি কামনা। ডিয়ার কলিগ্‌স, আসুন আমরা মিস্টার সাহার স্মৃতিতে দু'মিনিট নীরবতা পালন করি"।  

No comments:

রবিবাবুর সমস্যা

- এই যে দাদা, দেশলাই আছে? - নাহ্। - আপনার বুঝি সে বদঅভ্যাস নেই? - বিড়ির? নাহ্। নেই। - একমিনিট৷ আপনার মুখটা কেমন যেন চেনাচেনা লাগ...