Monday, November 11, 2019

রাজেশ খন্নাঃ দি ফেনোমেনন

Image may contain: 1 person, smiling, text
বলিউড বিষয়ক কোনো বই পড়তে হলে আমি সোজাসুজি দীপ্তকীর্তিদার লেখা বা ওঁর রেকমেন্ড করা বই/লেখা পড়ি আজকাল৷ ওঁর কথা শুনেই ইয়াসের উসমানের লেখা সঞ্জয় দত্তর জীবনীটা পড়ি, দিব্যি লেগেছিল৷ সদ্য শেষ করলাম উসমানেরই লেখা রাজেশ খান্নার বায়োগ্রাফি৷

বলিউডি তারকাদের বিষয়ে কিছু পড়ার ক্ষেত্রে একটা বড় অসুবিধে হচ্ছে যে মাঝেমধ্যে গসিপ আর ফ্যাক্ট গুলিয়ে ব্যাপারটা একটা প্রমাণ সাইজের চুটকি হয়ে দাঁড়ায়। কপাল ভালো যে উসমানের লেখায় চমৎকার 'ফ্লো' থাকলেও তা কখনই গসিপ কলমের মত মনে হয়না৷ এর একটা বড় কারণ হচ্ছে যে ভদ্রলোক প্রবল নিষ্ঠার সঙ্গে প্রতিটা ঘটনা এবং মন্তব্যের সোর্স কোট করে যান আর সে'টা করেন এমন মুন্সীয়ানার সঙ্গে যে পড়তে পড়তে হোঁচট খেতে হয়না; বরং কোন "সোর্সের" বিশ্বাসযোগ্যতা ঠিক কতটা সে'টা পাঠক হিসেবে নিজের বোধবুদ্ধি অনুযায়ী দিব্যি বিচার করে নেওয়া যায়৷ উসমানের রিসার্চে আলস্য নেই এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তার লজিক-বোধ এবং 'ইনফারেন্স'গুলোর সঙ্গে সহজেই একমত হওয়া যায়৷

এ'বার আসি এই বইয়ের প্রসঙ্গে৷

এক৷
রাজেশ খন্না; "দি ফেনোমেনন"৷ রাজেশ খন্নার ওপর যে কোনো বই তাঁর কেরিয়ারের এই দিকটাকে কতটা সার্থক ভাবে তুলে ধরছে তার ওপর সে বইয়ের গুরুত্ব অনেকটাই নির্ভরশীল৷ এ ক্ষেত্রে ইয়াসের উসমান চমৎকার ভাবে যতীন খন্নার " রাজেশ" হয়ে ওঠার থ্রিলিং গল্পটা বলেছেন৷

দুই৷ " দ্য এনিগমা"৷ রাজেশ খন্নার মত রীল আর রিয়েল গুলিয়ে ফেলতে বোধ খুব বেশি মানুষ পারেননি৷ আর অন্ধের হাতি চেনার মত বিভিন্ন মানুষ বিভিন্নভাবে রাজেশকে দেখেছেন, সেই "দেখা" গুলোকে রিকনসাইল করতে পারা চাট্টিখানি কথা নয়; তবে উসমান জবরদস্ত চেষ্টা করেছেন৷ সঞ্জীববাবুর একটা রম্যরচনায় পড়েছিলাম প্রত্যেক মানুষ ভাবে "আমায় কেউ চিনল না, কেউ বুঝল না"৷ রাজেশ খন্নার ক্ষেত্রে এই হাহাকারটা যতটা সুগভীর , ততটাই যন্ত্রণার৷ এই হাহাকারকে যতটা সম্ভব মেলোড্রামা এড়িয়ে তুলে ধরতে পেরেছেন উসমান৷

তিন৷ আগাসির বায়োগ্রাফিতে একটা চমৎকার ব্যাপার তুলে ধরা হয়েছে৷ যে 'এক নম্বর র‍্যাঙ্ক'কে জীবনের ধ্রুবতারা বলে মনে হয়েছিল আন্দ্রের, সে'খানে পৌঁছে আচমকা বড় অসহায় আর একা হয়ে পড়েছিলেন তিনি৷ তাঁর আত্মজীবনীর একটা বড় অংশ জুড়ে রয়েছে সেই অসহায়তার গল্প৷ সেই অসহায় আগাসি বারবার অন্ধকারের মুখোমুখি হয়েছেন কিন্তু হারিয়ে যাননি৷ সে'দিন থেকে রাজেশ খন্নার কেরিয়ার কার্ভ বোধ হয় সম্পূর্ণ উলটো খাতে গড়িয়েছে৷ সাফল্য দড়াম করে এসেছে রাজেশের জীবনে আর সে সাফল্য এমন এভারেস্ট গোছের যে তা ছিল রাজেশেরও কল্পনাতীত; কারণ সেই স্তরে এর আগে কেউ কোনোদিনও পৌঁছতে পারেনি৷ এবং সেই সাফল্য ভাসিয়ে নিয়েছিল ভদ্রলোককে, সে ভেসে যাওয়া এতটাই নিদারুণ যে আর ফিরতে পারেননি তিনি৷ কিন্তু ভেসে যাওয়াটুকুই রাজেশের জীবনের শেষ কথা নয়; এ'টুকু স্বস্তির রেশ পাঠকের মনে রেখে যেতে পেরেছেন লেখক।

চার৷ যে কোনো বায়োগ্রাফিতে "অ্যানেকডোট কোয়ালিটি" খুব জরুরী৷ এ বই সে'দিক থেকে হতাশ করেনা৷ রাজেশবাবুর জীবনের যাবতীয় সম্পর্ক আর তাঁর একাকিত্ব সুন্দরভাবে ফুটে উঠেছে এই জীবনীতে৷ রাজেশ খন্নার জীবনের বিভিন্ন সম্পর্কের টানাপোড়েন থেকে সিনেমা বিষয়ক খুব চমৎকার কিছু ট্রিভিয়া রয়েছে এ বইতে৷ কী ভাবে একটা ইন্ডিয়ান আইডল মার্কা ট্যালেন্ট হান্ট রাজেশের জীবন পালটে দিয়েছিল? শুটিং শুরুর আগেই আরাধনা ভেস্তে যেতে বসেছিল কী ভাবে? বাওয়ার্চি ছবির শুটিংয়ের সময় জয়া ভাদুড়ি রাজেশবাবুর প্রতি বিরক্ত বোধ করেছিলেন কেন? নমকহারাম সিনেমার ক্লাইম্যাক্স কীভাবে পাল্টাতে হয়েছিল রাজেশ খন্নার জেদের বশে আর তা কী ভাবে 'ব্যাকফায়্যার' করেছিল? অঞ্জু মহেন্দ্রু কেন সোবার্সকে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন? বিভিন্ন ছোটছোট ঘটনা মিলিয়ে মিশিয়ে দিব্যি দাঁড় করানো হয়েছে এই বায়োগ্রাফি যা যে কোনো বলি-ফ্যানের উপাদেয় মনে হতে বাধ্য।

পাঁচ। বল্কির নির্দেশনায় একটা বিজ্ঞাপন তৈরী করে হ্যাভেলস, তাদের ফ্যানের জন্য; বিজ্ঞাপনটা খানিকটা বিতর্কের সৃষ্টি করেছিল। সে'টাই রাজেশবাবুর শেষ শুটিং। বইয়ের প্রায় শেষের দিকে এসে সেই বিজ্ঞাপন শুটিংয়ের ঘটনাটা বিশদভাবে বলা আছে। বইয়ের এই অংশটা পড়ে আমি ইউটিউবে বিজ্ঞাপনটা বার কয়েক দেখি আর ব্যক্তিগত ভাবে বলি; আমার গায়ে কাঁটা দিয়েছে।

রাজেশ ভক্তরা চট করে এ বই পড়ে ফেলতেই পারেন।

No comments: