Wednesday, August 19, 2020

সুভাষবাবু ও রাধামোহন

- আ...আপনি এসেছেন? 

- কী চাই?

- আ..আ..আ..আপনি সত্যিই এসেছেন?

- হাতে সময় কম।

- নমস্কার স্যার। সরি..স্যালুট স্যার.। থুড়ি..লহ প্রণাম।

- এ'সব আবার কী রাধামোহন?

- আ..আপনি আমার নামও জানেন? 

- নাম না জেনে তোমার বাড়িতে আসব ভেবেছ?

- নেতাজী অমর রহে।

- প্ল্যানচেটে ডেকে বলছ অমর রহে? তোমার সেন্স অফ হিউমর তো বেশ সরেস।

- মাফ করবেন হে মহামানব। হে স্বাধীনতার ইয়ে..মানে কাণ্ডারী..।

- এ তো মহাজ্বালায় পড়া গেল৷ বলি ক্লাস সিক্সের এস্যে লেখা কতক্ষণ চালাবে? প্ল্যানচেটের মাধ্যমে আমায় ডাকতে চেয়েছিলে কেন?

- সুভাষবাবু৷ সরি..পরমপূজনীয় নেতাজী..আপনি ফিরেছেন জানলে গোটা বাঙলা..না না..গোটা ভারতবর্ষ আনন্দে উচ্ছ্বাসে মুখর হয়ে উঠবে৷আমার আজ কী সৌভাগ্য... দু'হাজার কুড়ি সালে নেতাজি এসে পৌঁছলেন এই সামান্য অকাল্ট প্র‍্যাক্টিশনারের ড্রয়িংরুমে৷ আপনার সামনে আমি নতজানু স্যার।

- আত্মারা কখনও ফেরে না ভাই৷ ওই, মাঝেমধ্যে উঁকি দিয়ে যাই।

- আপনি মাঝেমধ্যে উঁকি দিলেই হবে৷ আপনার অনুপ্রেরণায় ভর দিয়ে আমরা সঘন গহন তমসা কাটিয়ে নতুন ভোরের দিকে এগিয়ে যাব।

- এই সেরছে। কী কাটাবে? 

- ওই যে স্যার। সঘন গহন তমসা। কাটিয়ে দেব। প্রতিটি সাচ্চা বাঙালি যে এদ্দিন আপনারই অপেক্ষায় বসেছিল।

- রাধামোহন।  আমি ফিরিনি৷ তোমার প্ল্যানচেটে ধরা দিয়েছি মাত্র৷ এ'বার বলো দেখি, অমন হন্যে হয়ে আমার খোঁজ করছিলে কেন?

- স্যার। আপনার অন্তর্ধানের ব্যাপারটা নিয়ে খচখচ কাটছিল না৷ অথচ ব্যাপারটা নিয়ে কেউই ঝেড়ে কাশছে না। তাই ভাবলাম এদ্দিনের প্যারানরমাল বিষয়ক পড়াশোনাটা কাজে লাগিয়ে যদি হর্সেস মাউথ থেকে কেসটা জানতে পারি। কী হয়েছিল বলুন দেখি স্যার? লেঙ্গিটেঙ্গির কেস ছিল নিশ্চয়ই কিছু? বাঙালিদের কপালেই যত ট্র‍্যাজেডি, তাই না স্যার?একটু খোলতাই করে বলুন না আদতে ঠিক কী হয়েছিল। সুযোগ পেয়েইছি যখন আসলি ব্যাপারটা না জেনে আপনাকে ছাড়ছি না কিন্তু।

- মেগাসিরিয়ালের আগামী এপিসোডে কী হবে মার্কা আগ্রহ নিয়ে ইতিহাস ঘাঁটতে নেই ভাই৷ ও প্রসঙ্গ বরং থাক৷ তা, আর কোনও প্রয়োজন আছে কী?

- আলবাত আছে স্যার৷  আপনাকে পাশে পেলেই আমরা আঁধার রজনীর তোয়াক্কা না করে দেশ বাঁচানোর লড়াইয়ে নেমে পড়ব। শুধু আপনার সাপোর্টের অপেক্ষা৷ একটু গাইড করুন না, দেশের সেবাটেবা করি একটু।

- বটে? রাধামোহন? 

- হুকুম করে দেখুন না স্যার৷ আপনি চাইলেই লিটার লিটার রক্ত দিয়ে দেব। আপনি শুধু একবার বলে দেখুন৷ আপনার গাইডেন্স পেলেই ঝাঁপিয়ে পড়ব। রিয়েলি স্যার। আমরা আবার ধর্মে মহান হব, কর্মে মহান হব আর ওই নবদিনমণিও উদিবে। শুধু একটা চান্স দিন স্যার আমায়৷ একটা চান্স। আপনি বললেই লিটার লিটার রক্ত দিয়ে দেব৷ দেবই।

- দু'ফোঁটা রক্ত বরং হৈমবতীকে দিও।

- হৈমবতীটা কে নেতাজী?

- তোমার এই ঘরে একটা খুদে মশা ঘুরঘুর করছে৷ ভারী মিষ্টি মশাটি। খানিকক্ষণ আগেই নজরে পড়ল। আমি ওর নাম দিয়েছি হৈমবতী।  

- ইয়ে, ঠাট্টা করছেন স্যার?

- ঘাসের ওপর কাসুন্দি ছড়ালেই কি তা খাওয়ার যোগ্য হয়ে ওঠে ভাই? ঠাট্টা অতি মূল্যবান জিনিস, অপচয় করতে নেই। তোমার প্ল্যানচেটে সাড়া কেন দিলাম সে'টা বলি বরং। তুমি দেশের ও দশের সেবার করতে চাও, তাই না রাধামোহন? 

- ভারত আমার ভারতবর্ষ গুনগুন করতে করতে আমার চোখ ভিজে যায় স্যার। দেশের হয়ে সংগ্রাম করব৷ বিপ্লব করব।

- সে'সব হবে'খন৷ কিন্তু রাধামোহন, তোমার বাথরুমের নলটা অনেকক্ষণ খোলা রয়েছে। চৌবাচ্চা ভরে ভেসে যাচ্ছে অথচ নল জল ঢেলেই যাচ্ছে৷ তোমার বেসিনের কলও তুমি টাইট করে বন্ধ করার প্রয়োজন মনে করোনা। আগে জলের অপচয় আটকাও, কেমন? রক্ত দিয়ে সঘন গহন তমসা কাটানোর ব্যাপারটা না হয় আমরা পরে দেখব'খন৷

No comments:

ধপাস

সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। বহুক্ষণ পর আমার পড়া একটা প্রবল 'ধপ...