Wednesday, August 12, 2020

ফেরতবাবার দরবারে


- কী চাই।

- আজ্ঞে আপনার আশীর্বাদ চাই ফেরতবাবা। আপনার আশীর্বাদ।

- ও'সব ফাঁপা আওয়াজ দিয়ে লাভ নেই৷ আশীর্বাদ! ন্যাকাপনা। ধান্দা ছাড়া ফেরতবাবার দরবারে কেউ আসে না। 

- না না। ভক্তিটা কিন্তু জেনুইন।

- বটে? বেশ৷ তুমি আশীর্বাদ চাইলে৷ আমি মা তারার নাম করে আশীর্বাদ দিলাম৷ এ'বারে তা'হলে কেটে পড়।

- অমন করে বলবেন না বাবা। বড় আশা নিয়ে এসেছি৷ হারানো জিনিস খুঁজে পেতে হালিশহর থেকে হরিয়ানার তাবড় বাবুরা ছুটে আসে আপনার কাছে। আমি অবিশ্যি এ পাড়াতেই থাকি। নাম সুকুমার দত্ত। পাতি প্রাইভেট ফার্মের ক্লার্ক বাবা। কিন্তু সাহস করে আপনার কাছে চলেই এলাম।

- অঢেল ন্যাকপনা, তার ওপর বিনয়। তুমি তো হীরের টুকরো খদ্দের হে।

- খদ্দের বলবেন না ফেরতবাবা৷ খদ্দের বলবেন না। আপনি এত বড় তান্ত্রিক। আমি তো ভক্ত।

- তন্ত্রসাধনা করি বটে৷ সেই তন্ত্রের জোরেই লোকের হারানো জিনিসের হদিস পাই। কিন্তু তা বলে আমি আলাভোলা সাধক নই। আদ্যোপান্ত ব্যবসায়ী। আর আবারও বলি৷ খুলি বাগিয়ে, জটা মাথায়, গায়ে ছাই মেখে বসে আছি বলেই পরমসাধক বলে আমার ঠ্যাং জড়িয়ে ধরতে হবে, অমন হাতুড়ে তান্ত্রিক আমি নই। তুমি ফেলবে কড়ি আর আমি আমার তন্ত্রবলে তোমার হারানো জিনিসের খোঁজ বলে দেব। 

- আপনি মহাপুরুষ। 

- প্রতিটা হারানো জিনিস প্রতি একশো কুড়িটাকা ফিজ। তা সে বাড়ির দলিলই হোক বা নস্যির কৌটো। 

- সত্যিই...এত ভক্তের সমাগম আপনার দরবারে ফেরতবাবা।

- বাজে গপ্প ফেঁদে শেষে ডিসকাউন্ট চেয়ে বসবে ভেবেছ? সে গুড়ে বালি। 

- ও মা। আমি অ্যাডভান্স ডিপোজিট করে এসেছি তো। 

- কাজের কথায় এসো বাছাধন। বলি কী হারিয়েছে?

- আজ্ঞে, এক জোড়া কানের দুল। অনেকটা সোনা দিয়ে গড়ানো। রীতিমতো ওজন আছে। বিবাহবার্ষিকীতে বউকে..সারপ্রাইজ দেব ভেবেছিলাম..।

- বটে। কবে কেনা?

- আজ্ঞে গত হপ্তায়। কিনে সে'টাকে বইয়ের আলমারির এক কোণে লুকিয়ে রেখেছিলাম আর কী। কিন্তু গতকাল সকালে উঠেই..।

- উঁ।

- কী ভাবছেন ফেরতবাবা? অমন চোখ বুজে..। এ'টাই কি আপনার প্রসেস?

- শোনো ভাই সুকুমার। এই যে তোমার একশো কুড়ি টাকা। রিটার্ন। রাখো।

- সে কী বাবা। অপরাধ নিলেন নাকি?

- না না। কিন্তু এ দুলের খবর আমি পাচ্ছি না।

- কিন্তু আপনার কাছে তো কোনও কিছুই...। বদ পলিটিকাল নেতারা নাকি আপনার কাছে এসে নিজেদের বিবেকের খোঁজ পেয়ে যায়। আর এই সামান্য দুলটা..।

- তুমি তো ভারি বেআক্কেলে মানুষ হে। তান্ত্রিকের মুখে মুখে তক্ক? দেব নাকি শাঁকচুন্নি লেলিয়ে?

**

- এ'টা কী হলো গুরু?

- কীসে কী।

- ওই যে। সুকুমার দত্তর কেনা দুলের খোঁজ তুমি পাওনি, এমনটা তো হতে পারে না।

- তুই চ্যালা। গুরুর সব ব্যাপারে নাক গলিয়ে তোর দরকারটা কী?

- আমি ফেরতবাবার ইন্টার্ন। চ্যালা বলে হ্যাটা করো কেন।

- অত কথায় তোর কাজ কী।

- বলো না। সুকুমার দত্তকে ওর সেই সোনার দুলের খোঁজ দিলে না কেন? তুমি সত্যিই ও দুলের খবর পাওনি?

- হরিপদ কাঠের মিস্ত্রি। কী একটা কাজে দু'দিন আগে সে সুকুমার ব্যাটার ড্রয়িং রুমে গেছিল। সুযোগ পেয়ে বইয়ের তাক থেকে দুলের বাক্সটা সেইই সরালে..।

- চুরি? তুমি এত বড় কথাটা চেপে গেলে গুরু?

- হরিপদ সে'দিন রাতের বেলা সোহাগ করে সে দুল নিজের বউকে পরিয়েও দিল রে। 

- তা বলে চুরির মাল? তুমি বরদাস্ত করলে?

- চুরিট অপরাধ বটে। তবে ঘুষ দেওয়াটাও কম অন্যায় নয়।

- ঘুষ?

- ওই কানের দুল ছাড়াও সুকুমার দত্তর আরও একটা জিনিস হারিয়েছে রে চ্যালা। স্পষ্ট দেখতে পেলাম। তা দেখেই তো ওর ফিজটা সোজা ফেরত দিয়ে দিলাম।

- সুকুমার দত্ত আর কী হারিয়েছে? দেখলে যখন তার খোঁজ দিলেনা কেন গুরু?

- সুকুমার আর তার স্ত্রী; নিজেদের মধ্যের ভালোবাসাটুকু তারা বেমালুম হারিয়ে ফেলেছে। বিশ্বাস কর, স্পষ্ট দেখলাম। পড়ে আছে শুধু উপহার চালাচালি আর দেখনাই। আর এ'সব উপহার নয় রে চ্যালা, স্রেফ ঘুষ। হরিপদ অন্যায় করেছে। তবে তন্ত্রমতে তাকে ক্ষমা করে দিলাম। সুকুমার না হয় অন্য ঘুষ খুঁজে নেবে'খন৷ আর দুলজোড়া পেয়ে হরিপদর বউয়ের হরিপদকে জাপটে ধরা আনন্দটুকু? লাখ টাকার রে চ্যালা। লাখটাকার।

No comments:

ধপাস

সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। বহুক্ষণ পর আমার পড়া একটা প্রবল 'ধপ...