Monday, July 12, 2021

সাফ টেবিল



অফিসে একটা জমজমাট প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। "সাফ টেবিল প্রতিযোগিতা"। সবচেয়ে জমাটি ব্যাপার হল যে এ খেলায় আলাদা করে খেলতে নামার সুযোগ নেই, বিচারকরাই এক্ষেত্রে মাঠে নেমে দাপাদাপি করে থাকেন। বিনা নোটিশে তাঁরা ঘুরে ঘুরে সবার অফিস ডেস্ক জরীপ করে নম্বর দেবেন। কার টেবিলে জঞ্জাল কম, কে সমস্ত কাগজপত্র মনিকা-গেলার-গোছের হাড়-জ্বালানো জ্যামিতিতে সাজিয়ে রেখেছে, কে আবার বাড়তি সৌন্দর্য যোগ করেছে অনাবিল টবে বাহারে পাতার ছোট্ট গাছ সাজিয়ে রেখে। আচমকা যখন বিচারকরা হেলতেদুলতে আমার টেবিলের সামনে এসে দাঁড়ালেন তখন আমার টেবিলে তখন আস্ত চিৎপুর বাজার উপুড় হয়ে রয়েছে। অন্তত খান পাঁচেক ফাইল ছড়িয়েছিটিয়ে, সবক’টাই খোলা। এ ছাড়া একটা পেন স্ট্যান্ড যে’টার মধ্যে সাতটা কলমের ঢাকনি আর একটাও পেন নেই। সতেরো রকমের তার টেবিলের নীচে ওপরে জড়াজড়ি করে পড়ে। গাছপালা নেই তবে দু’তিনটে প্রিন্টআউটের মরা বাঁশ শুয়ে পড়ে আছে অযত্নে। এ ছাড়া একটা ঢাউস টিফিনবাক্স, দু’টো জলের বোতল, একটা ব্যাকপ্যাক, দু’টো স্টেপলার আর দু’টো পিনের বাক্স (কিন্ত স্টেপলারে পিন ভরা নেই, প্রতিবার স্টেপল করার দরকার হলেই ভাবছি এইবারের মত কমন প্রিন্টারের কাছে বেঁধে রাখা স্টেপলার ব্যবহার করে কাজ চালিয়ে নিই, তারপর না হয় স্টেপলারে পিন ভরে নেওয়া যাবে'খন), একটা জেমস ক্লিপের ডিবে (যে’টা বোধ  হয় ১৯৯৭ সাল থেকে এই টেবিলে পড়ে রয়েছে কিন্তু কেউই তাদের ব্যবহার করে উঠতে পারেনি), দু’টো টেবিল ক্যালেন্ডার (একটা গত বছরের, সরানো হয়নি। অন্যটা এ বছরের কিন্তু মার্চের পর থেকে পাতা পালটানো হয়নি), একটা হলুদ আর একটা কমলা হাইলাইটার (কমলা হাইলাইটারের মাথায় হলুদ খাপ আর হলদের মাথায় কাঁচকলা)। একটা বদখত সাইজের ডায়েরি, সে'টাও আধখোলা। আর কিউবিকেলের একদিকে সাঁটানো রঙবেরঙের অজস্র স্টিকি-নোটস (সে স্টিকি-নোটে যেহেতু আমার হাতের লেখা, সেহেতু সেগুলোর দিকে আধ-মিনিটের বেশি একটানা তাকিয়ে থাকে ব্লাড-প্রেশার বেড়ে যেতে বাধ্য)। 

প্রথম বিচারক বিহ্বল হয়ে আমার দিকে চাইলেন, বিব্রত হলেও আমায় খানিকটা হাসতে হল। এমন গোলমেলে পরিস্থিতিতে হ্যা-হ্যা করতে পারলে দেখেছি অস্বস্তি খানিকটা কাটানো যায়। খানিকক্ষণ আমার টেবিলের দিকে তাকিয়ে চুকচুক শব্দ করলেন এক’দুবার। তারপর বললেন; 
“ট্যু ক্লাটার্ড মুকর্জি”! 

অগত্যা আমি হাসির ডোজ বাড়িয়ে দিলাম। দ্বিতীয় বিচারক ভদ্রলোক আমার নার্ভাসনেস ধরতে পেরে খানিকটা নরম ভাবে বললেন,
“ঘাবড়ে যেও না ব্রাদার, আইনস্টাইন মানবজাতীর উদ্দেশ্যে একটা মোক্ষম প্রশ্ন ভাসিয়ে দিয়ে গেছেন। সে’টা জানা আছে তো? If a cluttered desk is a sign of cluttered mind, of what then, is an empty desk a sign”? 

No comments:

পুরনো লেখা