Tuesday, April 28, 2020

গুরুপদর সাপ্লাই


- নিশিকান্ত নাকি?

- আজ্ঞে।

- তুমি আবার দরজার বাইরে দাঁড়িয়ে কেন। ভিতরে এসো, এসো।

- আজ্ঞে।

- ওই মোড়াটা টেনে বসো দেখি। 

- আজ্ঞে...বসব?

- ও। তোমার তো আবার দাঁড়ানোও যা, বসাও তাই৷ 

- আজ্ঞে।

- তা শরীরটরীর ভালো তো?

- আজ্ঞে? শরীর?

- আহা তাই তো। তোমার আবার শরীর। বয়স হয়েছে তো৷ মাথাটাথা গুলিয়ে যায় মাঝেমধ্যেই।

- আজ্ঞে...বিরানব্বুই আর এমন কী..।

- বাতের ব্যথাটা এমন বাড়াবাড়ি শুরু করেছে আজকাল...বুঝলে বাবা নিশিকান্ত...।

- আজ্ঞে..দেব নাকি পা টিপে?

- গলা টেপার বদলে মানুষের পা টিপবে ভাই নিশি? ধর্মে সইবে?

- কী যে বলেন..আজ্ঞে। যবে থেকে আপনার শ্রীচরণে ঠাঁই পেয়েছি...ও'সব শয়তানি ছেড়ে দিয়েছি।

- তা দিয়েছ বটে। শোন বাবা নিশিকান্ত, এসেছই যখন...কুকারে একটু চাল আর আলু চাপিয়ে দিয়ে যেও। ভয় নেই, আগুন জ্বালতে আমি এখনই বলব না। তুমি তৈরি হওনি এখনও। তুমি শুধু চাপিয়ে দিয়ে যেও। আমি উনুন জ্বেলে নেব'খন।

- আজ্ঞে। আসলে...আগুনের ভয়টা এখনও ঠিক কাটিয়ে উঠতে পারিনি৷ 

- অঙ্কে প্র‍্যাক্টিস আর তন্ত্রে সাধনা...এই দুইয়ে ফাঁকি দিলে চলবে না। 

- আজ্ঞে...ফাঁকি ঠিক দিইনি। সাধনায় কাঠখড়ও কিছু কম পোড়াচ্ছিনে। কত দিন চেষ্টা করার পর গিয়ে গলা টেপার লোভ ছাড়তে পেরেছি। দুমদাম মানুষের পিলে চমকে ফুর্তি করার অভ্যেসও..ইয়ে...আগের মত নেই। সামান্য মাছের আঁশের পচা গন্ধ শুঁকে একটু ফুর্তি করতাম...তাও ছেড়েছি বছর দুই হল। শুধু শ্মশানের বাইরে আগুন দেখলে এখনও বুকটা ছ্যাঁৎ করে ওঠে....। ফাঁকিবাজ হলে, এ'সব কি হত আজ্ঞে?

- বলি যে মন্ত্রটা দিয়েছিলাম, সে'টা রাতে আড়াইশোবার আওড়াচ্ছ কি?

- ওই যে..খ্যাটিম্যাটি খ্যাংখ্যাং জবাট্যাং মাংটক...আকিসুকি কুলঘুল জিল্যাটাং ভড়কক? আজ্ঞে?

- ওইটাই...তা, মন্ত্রটা আওড়ানো হচ্ছে কি? প্রতি রাতে? আড়াইশোবার?

- তা হচ্ছে। কোনও কোনওদিন হয়ত বার চল্লিশেক বার কমবেশী হয়ে যায়।

- সাধনায় কম বেশি চলে না হে। চলে না। দেখ নিশিকান্ত, এক ভূতকে নিয়ে এত বেশি সময় নষ্ট করলে আমার চলবে কেন? আরও কতজন লাইনে রয়েছে জানো?

- আজ্ঞে, আপনার দয়াদৃষ্টি থেকে এ অধমকে বঞ্চিত করবেন না যেন৷ আমি আজ থেকেই হাজারবার করে সে মন্তর পড়ব। আর ছ'মাসের মধ্যে নিজের হাতে আপনার স্টোভ জ্বলে আপনাকে বেগুনি ভেজে, খিচুড়ি রেঁধে খাওয়াব। 

- সাধনায় ফাঁকি চলে না, বাড়াবাড়িও না। পাক্কা আড়াইশো বার, রোজ রাতে। 

- যে আজ্ঞে। আমি প্রমাণ করে ছাড়ব যে আমি ভূতমাস্টার গুরুপদ হালদারের যোগ্য ছাত্র। 

- গদগদে আর বাঁচিনা। যাও, গিয়ে হাঁড়িটা বসাও।

**

- দেখুন গুরুপদবাবু, আমার ফ্যাক্টরিতে ডিমান্ড যে'ভাবে বাড়ছে...আপনার থেকে সাপ্লাই তেমন ভাবে পাচ্ছি কই বলুন। অন্য ভূত ট্রেনারের কাছে না গেলে আমার বোধ হয় আর চলবে না। আফটার অল, আই হ্যাভ আ বিজনেস অ্যান্ড আ ফ্যাক্টরি টু রান। 

- অমনটি বলবেন না মিস্টার চ্যাটার্জী। অমনটি বলবেন না। আপনার সোদপুরের ফ্যাক্টরির সমস্ত লেবার ভূত আমিই সাপ্লাই দেব, ও নিয়ে আপনি চিন্তা করবেন না। আজকাল দু'চারটে ভূত এমন ত্যাঁদড় বেরোয়...তাদের ট্রেন করতে দিনের পর দিন...।

- ও'সব অজুহাত শুনলে আমার চলবে কী করে গুরুপদবাবু? একটা ভূত সাপ্লাইয়ে দেরী করা মানে তার বদলে আমায় একশোটা রোবট ডেপ্লয় করতে হয়৷ এদিকে একটা ভূতের মেন্টেনেন্সের তুলনায় একটা রোবট মেন্টেন করার খরচ দশগুণ বেশি। অর্থাৎ আমার লেবার কস্ট দাঁড়ায় থাউজ্যান্ড টাইমস মোর। আপনার এক একদিনের দেরী আমার প্রডাকশন কস্ট কী ভাবে বাড়িয়ে দিচ্ছে সে খেয়াল আছে?

- প্লীজ স্যার। আপনার এদ্দিনের সাপ্ল্যায়ার আমি, আর একটা সুযোগ দিন। ত্যাঁদড় হলেও কয়েকটা সুপার-এফিশিয়েন্ট ভূত তৈরি করতে পেরেছি বুঝলেন। নিশিকান্ত বলে একটা ভূত...যখন প্রথম পাকড়াও করি তখন এক্কেরে হাবাগোবা ছিল। এখন ওই একটি ভূতে আপনার তিনশো রোবট চিৎপটাং হয়ে যাবে; না হলে গুরুপদ হালদারের নাম পাল্টে নেতুরাম রাখবেন'খন।

- দেখুন, আমি কথায় নয়৷ কাজে বিশ্বাস করি। ভূতের এফিশিয়েন্সি বেশি হলে, আপমার কমিশনও বাড়বে। কিন্তু আই ওয়ান্ট দেম ক্যুইক।

- হেহ্ হেহ্...হবে হবে। আচ্ছা চ্যাটার্জিবাবু,আপনার মনে পড়ে? এজ এখন ভূত লেবারদের নিয়ে যেমন টানাটানি, এককালে রোবটদের নিয়েও ইন্ডাস্ট্রিদের এমনই হ্যাংলামো ছিল? এখন আমাদের মত ভূত ট্রেনারদের যে অল্প ইয়েটিয়ে একটু হয়েছে, সে'কালে দেখতাম রোবট ম্যানুফ্যাকচারারদের কী সাংঘাতিক রোয়াব।

- ইট ইজ অল আ গেম অফ কস্ট মিনিমাইজিং গুরুপদবাবু৷ লেবারটেবার  এমনিতে পেটি ইস্যু। ইকনমিতে আসল খেল জমে ক্যাপিটাল আর কনসিউমারের মধ্যে। লেবার ব্যাপারটাকে মাথায় উঠতে দিলেই লায়াবিলিটি; তাদের এফিশিয়েন্সি হতে হবে গগনচুম্বী অথচ তাদের পিছিনে খরচ হতে হবে মিনিমাম। মানুষ শ্রমিকের হাজার বায়নাক্কা, তাই ইন্ডাস্ট্রি সোজাসুজি ও'সব হ্যাপা বাদ দিয়ে রোবটে চলে গেল।  কিন্তু সে'টাও তো এখন ইতিহাস, প্রায় মান্ধাতা আমলের ঘটনা। এ'টা তো আর টুয়েন্টি ফিফটি নয়, দিস ইজ আ নিউ ওয়ার্ল্ড। নিউ অর্ডার। ফ্যাক্টরিতে রোবটের চেয়ে ভূতের পিছনে খরচ অনেক কম, আর ভূতের বেগার খাটার ক্ষমতাও অনেক বেশি। রোবটদের মত ফিজিক্সের নিয়ম নিয়ে আদেখলামো নেই ভূতেদের মধ্যে আফটার অল৷ আমি আপনাকে লিখে দিচ্ছি গুরুপদবাবু, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে থেকে সমস্ত রোবট লেবার উবে যাবে, জাস্ট লাইক হিউম্যান লেবার। শুধু ভূতের বেগার খাটনিতে সমস্ত ইন্ডাস্ট্রি চলবে।

- এমনটাই তো প্রকৃতির নিয়ম৷ গতকাল ছিল রোবট, আজ আছে ভূত, আগামীকাল হয়ত অন্য কিছু এসে শ্রমিক সাজবে।

- ওই যে বললাম। কস্ট মিনিমাইজিং ইজ দ্য রিয়েল গেম গুরুপদবাবু। তাতেই গোবেচারা ক্যাপিটালিস্টদের সামান্য মুনাফা থাকবে আর নিরীহ কনজিউমারদের হাতে ডিসপোজেবল ইনকাম আর একটু বাড়বে। সে যাকগে...ইয়ে...আমি একটা রিউমর শুনেছি।

- গুজব? আজ্ঞে...কী রকম?

- এই গভর্নমেন্ট ইকনোমির ব্যাপারে ওয়াকিবহাল। সদিচ্ছেও আছে৷ শুনেছি তাঁরা ভাবছে যে দেশের মধ্যে যাদের কনজিউমার হিসেবে র‍্যাঙ্ক সবচেয়ে নীচের দিকে, তাঁদের মধ্যে নাকি র‍্যান্ডম স্যাম্পেল সিলেক্ট করে কম্পালসরি সুইসাইড করানো হবে; প্রতি বছর। কোন বছর কত কম্পালসরি সুইসাইড করানো হবে সে'টা ডিপেন্ড করছে লেবার ডিমান্ডের ওপর। সুইসাইড করানো হবে স্ট্যান্ডার্ড ভূত জেনারেটিং প্র‍্যাক্টিস অনুযায়ী যাতে টপ কোয়ালিটি ভূত তৈরি করা যায়। আপনার তো সোর্স আর সর্ষে নিয়েই কাজ৷ আপনার কাছে কোনও খবর আছে? আপনার সোর্স কী বলে?

- ব্যাপারটা গুজব নয় চ্যাটার্জিসাহেব। খবরটা পাকা। সামনের সেশনেই পার্লামেন্ট বিলটা পেশ করবে মনে হয়। ইয়ে, এক্কেরে হাঁড়ির খবর৷ তবে এখনই পাঁচকান করবেন না যেন। সরকারবাহাদুর বুঝেছেন যে ভূতের সাপ্লাই না বাড়লে জিডিপির পক্ষে টগবগিয়ে ছুটে চলা সম্ভব নয়। 

- আপনার মুখে ফুলচন্দন পড়ুক গুরুপদবাবু৷ নাহ্, গভর্নমেন্টের প্রশংসা করতেই হবে হোয়েন ইট ইজ ডিউ। হাড়হাভাতে লো-র‍্যাঙ্কিং কনজিউমারের বদলে যদি কিছু টেরিফিক কোয়ালিটির ভূত পাওয়া যায়; তাতে সত্যিই দেশের ও দশের মঙ্গল। কী বলেন?

- বটেই তো। বটেই তো।

No comments:

আলাপ

- কম্পলেক্সে নতুন মনে হচ্ছে? - ফাইভ-এ-তে এসেছি। গতকালই। - ওয়েলকাম। আমি সত্যব্রত ধর, ফাইভ-বি।  - ওহ। তা'হলে তো আমার ইমিডিয়েট ...