Thursday, May 2, 2013

বাঙালির বিপন্ন ক্যারিস্মা

বাঙালির ক্যারিস্মা কমে যাচ্ছে ক্রমশ। মধ্যবিত্তের ভুঁড়ি নেই, মধ্যবয়স্কের গেঁটে বাত নেই, মধ্য-বুদ্ধি ছাত্রের নধর আলিস্যি নেই। বিরক্তিকর।

পাড়ায় পাড়ায় এখন মাল্টী-জিম আর তার কব্জায় পড়ে পাবলিক চিমসে মেরে চলেছে। এক সময় ধুম ছিল ভোরবেলা আলতো হেঁটে এসে মৌজ করে পরোটা আলুর দম গেলার। এখন ছাই ট্রেড-মিলে নাচুনি ঝেড়ে , ডাইনিং টেবিলে বসে, ইকনমিক্স টাইমসে মুখ গুঁজে; করনফ্লেক্স গেলা। ছিঃ ছিঃ, অমন ফিটনেসের মাথায় বাজ।

ভাত-ঘুম ছিল এক কালের বিউটি-ফ্যাসন। এখন দেবীরা দুপুরে এরবিক্সে নিজেদের নিমজ্জিত করছেন।  ফল ? তোবড়ানো গাল, হাড়গিলে দেহ-পল্লব – অমনটা না হলে নাকি আজকাল চাবুক বলা চলে না। আরে বাবা, বং-ললনা যদি আলতো থলথলে সৌন্দর্য-রসে না ভিজে থাকেন; তাকে কি আর পাতে দেওয়া চলে ?

জিম যে অতি হাড়-হিম করা ব্যাপার; তা এই বেলা পাবলিকে টের না পেলে সমুহ বিপদ।

1 comment:

Aniruddha said...

আমাদের পাড়ায় থুতু ছোঁড়ার দূরত্বে চারটে লাগসই জিম, মহার্ঘ তো বটেই, তবে সব এযুগের বাঙালিত্বের মধ্যপ্রদেশ হ্রাসের জন্যই বেশি, বিশেষত প্রাক-বিবাহ এবং যৌবন-যায়-যায় মহিলাদের; পুরুষ পুঙ্গবদের সিক্স-প্যাক অ্যাব তৈরির চেষ্টা আমার চোখে এযাবৎ পড়েনি, এ-পাড়ায় অবশ্যই নয়। আমাদের ছেলেবেলায় কেরানিকুলোদ্ভব (অ-কেরানিরা আরো দুরবস্থায় ছিল) বাঙালির ভুঁড়ি বিশেষ দেখিনি, কারণ হয়ত খাদ্যাভাব - তখন গড়পরতা রোজগার (মাইনেপত্তর, উপরি, টিউশনের যৎকিঞ্চিৎ ইত্যাদি ইত্যাদি) কম ছিল, আর স্নেহোৎপাদক খাদ্যের সরবরাহ আরো কম। কাজেই তোমার উক্তি ও যুক্তি মেনে নিতে পারলাম না।

ধপাস

সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। বহুক্ষণ পর আমার পড়া একটা প্রবল 'ধপ...