Thursday, June 17, 2021

ডিভাইডেড আইল্যান্ড



কিছুদিন আগে ফ্যামিলি ম্যান -২ দেখলাম৷ টানটান, ঝকঝকে; ওই যাকে আমরা বলি "অ্যাকশন প্যাকড"৷ আর পাঁচজনের মত আমারও ভালো লাগল৷ সে'খানেই দাড়ি টেনে দিলে হত৷ কিন্তু সেই সিরিজের অন্যতম প্রধান চরিত্র রাজিকে ছুঁয়ে আগ্রহের নিশানা গিয়ে ঠেকল শ্রীলঙ্কার গৃহযুদ্ধে৷ সে বিষয় নিয়ে একটা আলগা ধারণা যে ছিল না তা নয়৷ ওই তামিল ইলম, এলটিটিই, প্রভাকরণ ইত্যাদি৷ এলটিটিইকে দুরমুশ করে যুদ্ধে ইতি টানা হয়েছে, নিউজচ্যানেল এবং ইন্টারনেটের বদান্যতায় তাও খানিকটা জানা ছিল৷ অবশ্য শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটের বাইরে সে'খানকার ইতিহাস সম্বন্ধে তেমন আগ্রহ এর আগে টের পাইনি৷ শেষে একটা ওটিটি থ্রিলার সে আগ্রহটা সামান্য উস্কে দিল৷ আমি যে কোম্পানিতে কাজ করি, তাদের অফিসপাট রয়েছে শ্রীলঙ্কায়। কাজেই শ্রীলঙ্কায় কিছুদিন চাকরী করে আসা কিছু মানুষজনকে চিনি৷ কলোম্বোর জীবন সম্বন্ধে খানিক গল্পগুজবও জুড়েছি তাদের সঙ্গে কয়েকবার৷ তবে অফিস পরিসরে যা ঘটে, গল্প-আলোচনা গভীরে পৌঁছয় না৷ 

এই বইটার খোঁজ দিল আমার শ্রীলঙ্কা-বিশেষজ্ঞ বন্ধু সুহেল৷  বই জোগাড় হল। পড়াও হল৷  গোড়াতেই সহজ কথাটা বলে দেওয়া যেতে পারে। এ বই না পড়লেই নয়৷ শ্রীলঙ্কার ব্যাপারে আগ্রহী না হলেও, মানুষের মানুষামি এবং অমানুষামি সম্বন্ধে সচেতন হওয়ার জন্য এ বই প্রায় মেড-ইজি-গাইডের মত৷ ক্ষুরধার সাংবাদিকতার সঙ্গে গভীর সংবেদনশীলতা না মিশলে এমন লেখা বোধ হয় সম্ভব নয়৷ শ্রীলঙ্কার গৃহযুদ্ধের নির্মম ইতিহাস পরিপাটি ভাবে সাজিয়ে দিয়েছেন সামন্থ। গোটা বইটাই উঠে এসে সাধারণ মানুষের কথায় ভর দিয়ে। সে দেশের আনাচেকানাচে ঘুরে, বহু মানুষকে বড় কাছ থেকে চিনে, তাঁদের জ্বালা-যন্ত্রণাকে পাশে থেকে অনুভব করে এই বই লিখেছেন সামন্থ৷ আর ভদ্রলোকের লেখার সবচেয়ে বড় গুণ হলো 'ব্যালেন্স'৷ টাইগার আর সিংহ; দু'দলেরই গোলমেলে দিক নিয়ে নির্দ্বিধায় আলোচনা করা হয়েছে এ বইয়ে৷ এমন একটা স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে এতটা ব্যালেন্সড লেখা বেশ একটা অসাধ্যসাধন করা ব্যাপার৷ 

কিছু গা-কাঁপানো ব্যাপার সামন্থের ঈর্ষনীয় ডিটেলিংয়ের মাধ্যমে উঠে আসেঃ

- যুদ্ধের পাগলামি কাউকেই রেয়াত করেনা।

- দুর্বলের প্রতি চড়াও হওয়ার পাশবিক বাসনা মানুষের মজ্জাগত, এর অন্যথা কোনওদিন ঘটেনি, ঘটবেও না৷ আমাদের যাবতীয় ইন্টেলেক্ট আর সভ্যভব্য বাতেলার আড়ালে একটা পাশবিক মব-মেন্টালিটি লালন করে চলা ধান্দাবাজ বসে আছে৷ ধান্দাবাজিটুকুই সিভিলাইজেশন বোধ হয়; মমনমোহন মিত্তির অন্তত ঠারেঠারে তেমন কিছুই বলতে চেয়েছিলেন৷ 

- আমরা সবাই স্রেফ সুযোগের অভাবে অন্যের বুকে ছুরি বসিয়ে মুনাফা লুটছি না৷ আওয়ার ভালোমানুষি ইজ প্রবাবলি দ্য অভাব অফ সুযোগ৷

- ভেঙেচুরে যাওয়া হেরো মানুষদের ঝাড়পোছ করে সাফ করে দিতে পারাটাই ইতিহাস। (সামন্থ পেরেছেন অ-ইতিহাসটুকু নিয়ে কথা বলতে, সে'খানেই এই বই সার্থক)।

যাকগে৷ লাইক আ ট্র‍্যু ঢেঁকি ধান-ভাঙিং ইন স্বর্গ; শ্রীলঙ্কা আর বাংলার যোগাযোগ নিয়ে দু'টো ট্রিভিয়া দিই (অবশ্যই এ বই থেকে ধার করে)ঃ

প্রথমত, 
রাজপুত্র বিজয় সিংহের কথা৷ এ'টা হয়ত অনেকরই জানা৷ সাতশোজন অনুচর নিয়ে বিজয় সিংহ প্রায় আড়াই হাজার বছর আগে শ্রীলঙ্কায় পৌঁছন৷ সেই বিজয় সিংহ থেকেই সিংহলদের যাত্রা শুরু৷ এ' ভদ্রলোকের বাপের রাজত্ব নাকি ছিল বাংলায়। ক'দিন আগে মাইকেল মধুসূদন দত্তের জীবন নিয়ে খানিকটা পড়েছিলাম, তিনিও এই বিজয় সিংহের লঙ্কাকাণ্ড নিয়ে ফলাও করে একটা মহাকাব্য লেখার ছক কষেছিলেন (শেষমেশ  সে লেখা অবশ্য এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেননি)। 

দ্বিতীয়ত,
সত্যজিতের গল্প৷ এ যোগাযোগটা একটু প্যাঁচালো তবে ব্যাপারটা বড় সুন্দর৷ বিজয় সিংহের লঙ্কা আগমনের পর হাজার দুই বছর কেটে গেছে৷ একদিন, সাংবাদিক ও কার্টুনিস্ট প্রগিথ একনালিগোডা (বানানটা বাংলায় ঠিক লিখলাম না হয়ত, ইংরেজিতে Prageeth) মন দিয়ে সত্যজিৎ রায়ের একটা স্কেচ আঁকছিলেন৷ ঘটনাচক্রে ঠিক সেই সময়ই একটা বিশেষ প্রয়োজনে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে আসেন এক এনজিওর কর্মী সন্ধ্যা। সেই প্রথম তাঁদের আলাপ৷ আলাপ থেকে বন্ধুত্ব, প্রেম, সাদামাটা বিয়ে আর প্রবল ভালোবাসার সংসার৷ প্রগিথ আর সন্ধ্যা তাঁদের প্রথম ছেলের নাম রাখা রেখেছিলেন সত্যজিৎ; নিজেদের প্রথম আলাপের কথা মনে রেখে৷ ঘটনাচক্রে,  সেই সত্যজিতের জন্মও হয়েছিল ২-মে৷

এই প্রথম ও দ্বিতীয় ঘটনাটির মাঝখানে শ্রীলঙ্কার বড় হয়ে ওঠা, বুড়িয়ে যাওয়া, এবং আর পাঁচটা দেশের মতই; বিষিয়ে যাওয়া। সরকারের না-পসন্দ কথাবার্তা নিজের আঁকা ও লেখার মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছিল প্রগিথ৷ বিভিন্ন হুমকি অগ্রাহ্য করে যুদ্ধের বিরুদ্ধে লেখালিখি শুরু করেছিল সে৷ একের পর এক হুঁশিয়ারি অগ্রাহ্য করার মাশুল তাকে অবশেষে দিতে হয়৷ আচমকা একদিন কাজের শেষে আর বাড়ি ফেরা হয়না প্রগিথের৷ বাতাসে মিলিয়ে যায় সে; সরকার বিরোধী সমস্ত প্রতিবাদের যেমন দশা হওয়া উচিৎ আর কী৷ শ্রীলঙ্কার সেই সত্যজিতের বাবা আর ফেরেননি৷

No comments:

পুরনো লেখা