Saturday, March 2, 2019

প্রমোশন


এই গতকালের ব্যাপার। স্প্রেডশিটের দিকে চোখ রেখে আনমনে আন্দুলের কথা ভাবছিলাম। আন্দুল কেন? তেমন নির্দিষ্ট কোনো কারণ নেই। স্কুলের বন্ধু নাড়ু একটা ফ্ল্যাট কিনেছে আন্দুলে, বহুদিন যাব যাব করেও যাওয়া হয়নি। আন্দুলের বদলে জর্জ অরওয়েল নিয়েও ভাবা যেত, ভাবা যেত খৈনি আর গঙ্গার ঘাট নিয়ে। মোদ্দা কথা এ মড়া স্প্রেডশিট থেকে মনকে লেভিটেট করে উঠিয়ে নেওয়াটাই জরুরী।

"তোমার তো পামিস্ট্রিতে বেশ ন্যাক আছে, তাই না নির্মল"?

টেবিলের ও'পাশ থেকে ভেসে আসা তীক্ষ্ণ কণ্ঠস্বর আর অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্নে সামান্য চমকে উঠতে হল। বসের প্রশ্ন। পার্সেন্টেজ আর প্রজেকশন বাদ দিয়ে পামিস্ট্রি? আন্দুলের আলুথালু ভাব থেকে মনটাকে টেনেহিঁচড়ে বের করে টানটান হয়ে বসতে হলে।

"আগ্রহ। পড়াশোনা। দু'টোই। কিন্তু কী ব্যাপার স্যর? মার্কেট শেয়ারের ট্রেন্ড বুঝতে জ্যোতিষের অ্যাসিস্টেন্স নেওয়ার কথা ভাবছেন নাকি"?

"প্রমোশন এক্সপেক্ট করছি হে নির্মল। হেডঅফিস থেকে হিন্ট একটা এসেছে। রীতিমত পসিটিভ। তাই ভাবছিলাম তোমার জ্যোতিষবিদ্যের দৌড় একবার বাজিয়ে দেখি"।

"হেডঅফিস যখন বলেইছে..."।

" অলমোস্ট শ্যিওর। কালকেই সুখবরটা পাওয়া উচিৎ। তবু। চাপা টেনশন তো থাকবেই। আমার মুখ দেখে কিছু প্রজেক্ট করতে পারছ কি"?

"মুখ দেখে ভাগ্য বিচার? সে'সব বিজ্ঞাপনি বুজরুকিতে আমি নেই। আপনার রাশিটা কী স্যর? বাংলা মতে"?

" বলে রাখি; আমার এ'সবে আদৌ তেমন ফেথ নেই। জাস্ট একটা কিউরিওসিটি মাত্র। আমার রাশি...ইয়ে...মেষ.."।

"মেষ..? হুঁ। হুমমম"।  জ্যোতিষ আমার নেশা এবং অধ্যাবসায়ের ক্ষেত্র; মগজ ও হৃদয় দুইই চট করে চনমনে হয়ে উঠল। চোখের সামনে গ্রহ-নক্ষত্রের জটিল নক্সা ছড়িয়ে পড়ল নিমেষের মধ্যে।

" কী ব্যাপার নির্মল? জটিল ক্যালকুলেশন শুরু করলে মনে হচ্ছে"?

"জটিল বটে। তবে স্পষ্ট। প্ল্যানেটারি মুভমেন্ট যা দেখছি স্যর; ইয়ে..."।

" ইয়ে মানে কী"?

"হবে না। আপনার প্রমোশন এ'বারে কিছুতেই হবে না"।

" হোয়াট"?

"হেডঅফিস গাঁজা ছেলেভুলোনো খবর পাস করেছে। আপনার প্রমোশন হতে হলে বেস্পতির অর্বিট চেঞ্জ করতে হয়। সে'টা ইম্পসিবল"। গলার মধ্যে থেকে আত্মবিশ্বাস ও দিব্যদৃষ্টি মেশানো একতাল ইস্পাত উঠে এলো যেন৷

আর তখনই বসের মুখের অন্ধকার আর আচমকা শক্ত হওয়া চোয়ালে ঘরের তাপমাত্রা একধাক্কায় চার ডিগ্রী নেমে গেলো।

" যত্তসব ইডিয়টিক মাম্বোজাম্বো। প্ল্যানেটারি মোশনস না কাঁচকলা। আর তোমার আধঘণ্টাতেও রিপোর্ট শেষ হয়নি নির্মল? আর কতক্ষণ "?

***

আজ চারপাশটা কেমন ঘোলাটে ঠেকছে। হেডঅফিস থেকে খবর এসেছে, বসের প্রমোশনটা হয়নি। 'লাস্ট মোমেন্ট এমার্জেন্সি'র অজুহাতে আটকে গেছে। খবরটা পাওয়ার পর থেকেই ভদ্রলোক আমার ওপর অকারণ খ্যাঁচম্যাচ করে চলেছেন।

এইমাত্র মনে পড়ল এ'বছর আমারও প্রমোশনটা হওয়ার কথা, খবর আসবে সামনের সপ্তাহে। মোটের ওপর নিশ্চিন্তই ছিলাম; সদ্য ধারণ করা গোমেদটা যে কাজ করবেই তা নিয়ে কোনো সন্দেহ গতকাল পর্যন্ত ছিল না। কিন্তু আজ বসের মেজাজ দেখে নিজের জ্যোতিষবিদ্যের ওপর কনফিডেন্সটা বেশ নড়ে গেছে। বসকে চ্যাটাং সুরে কথা বলার প্রভাব সম্ভবত গ্রহ-নক্ষত্রকে বিশ্রীভাবে ভড়কে দিচ্ছে। এখন টেনশন বাড়াবাড়ি পর্যায়ে।

ভাবছি আগামীকাল হাফছুটি নিয়ে আন্দুলে নাড়ুর ফ্ল্যাট থেকে একটু ঘুরে আসব। নাড়ু বরাবর বলে বেস্পতির মুভমেন্টের চেয়ে সিঙ্গল মল্টের কোয়ালিটি হৃদয়ে বেশি প্রভাব ফেলে; আজ আমার খুব নাড়ুকে বিশ্বাস করতে ইচ্ছে করছে।

No comments:

বাইশের দুই বিনোদ দত্ত লেন

- কাকে চাই? - ম্যাডাম, এ'টা কি অমলেশ সমাদ্দারের বাড়ি? - ওই ঢাউস নেমপ্লেটটা চোখে পড়েনি? ও'টায় কি অমলেশ সমাদ্দার লেখা আছে?...