Tuesday, May 31, 2016

অস্ত গেলেন রজনী

উত্তমবাবু বিড়বিড় করে চলছিলেন। একটানা।

"রজনী নিশ্চিন্তে চলে অধমের সাথে, তিনিই উত্তম যিনি চলেন তফাতে"।

ডিনারে ইলিশের পেটি রিফিউজ করে আর এক রাউন্ড কাঁচকলার ঝোল চাইলেন তিনি।

**

- কী হয়েছে বলো তো উত্তমবাবুর? কাজে মন নেই। সে'দিন অ্যাকশন বলতেই দেখি চমকে উঠলেন। কথাটা প্রথম শুনছেন যেন।

- জনশ্রুতি,  ভদ্রলোক ভূত দেখেছেন।

- আহ। গুজব!

- হবে হয়তো। তবে মরা হাতি আর ছিটগ্রস্ত উত্তম...।

- লাখ টাকা?

**

উত্তমবাবু লিপস্টিক আর বাইকের যোগসাজশ নিয়ে সুতীব্র ভাবনাচিন্তা করছিলেন। বেআক্কেলে লোকটা মাঝেমাঝেই "অ্যাকশন" বলে চিন্তার সুতো ছিঁড়ে দিচ্ছিল। মহা আপদ।

**

- কুছু কোরেন। কুছু কোরেন। পিলিজ।
- এতো হাইপার হচ্ছেন কেন বলুন তো?
- হাইপার হোবে না? গজব কা মুসিবত। উর উপরে আমার থার্টি ল্যাখস রাইড কোরছে। থার্টি। অউর সিরিফ আমার পরেশানি নহি। বাজার মে ক্রোর ইনভেস্টেড আছে।
- হুঁ। ব্যাপারটা এতটাই সিরিয়াস?
- ভেরি সিরিয়াস। কল হামি স্কচ অফার করলেম, উ বললে চাখনা মে রোস্টেড কচু কঁহা?
- রোস্টেড কচু?
- জি হাঁ।
- ব্যাপারটা সিরিয়াস যা বুঝছি।
- বহুত। সিরিয়াস। কন্সট্যান্ট বড়বড়; উত্তম রজনী, রজনী উত্তম। ননসেন্স।
- রজনী?
- আপনি চিনেন?
- ব্যাপারটা এতক্ষণে স্পষ্ট।  আর সাবজেক্টটা ননসেন্সিকাল নয় আগরওলাজী। তবে চিন্তা নেই, আমি সল্ভ করে  দেবো।
- করিয়ে দিবেন?
-   দিব'খন। দেখি। এ'বার রজনীর সাথে মোলাকাতটা সেরে নিতে হবে।

**

হাসির ঝলমল আর ইলিশে সোয়াদ একসাথে ফেরত পেলেন তিনি। নায়কের গায়ে ফের মহা মহা গন্ধ।

ওদিকে।

রজনী বসেছিলেন নদীর পাশে। পাথরে জলের ছলছল, আকাশে নরম সুরের নিশ্চুপ। বুকে বাউল গোছের সুড়সুড়ি। রজনী নদীর কুলকুলের তালে তাল মিলিয়ে গাইছিলেন;

"রেখেছো রজনী করে, রবি ঘোষ করোনি"।

No comments:

ধপাস

সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। সাঁইসাঁই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। পড়ছি তো পড়ছিই। বহুক্ষণ পর আমার পড়া একটা প্রবল 'ধপ...