Thursday, February 25, 2016

বাবু যুধিষ্ঠির


- অ্যাই। অ্যাই। চললেন কোথায় মশাই? চললেন কোথায়?
- না মানে। হাতঘড়িটা বন্ধ হয়ে গেস্‌ল কিনা। জাস্ট খেয়াল করিনি। একটা জরুরী মিটিং আছে বুঝলেন। এখুনি না বেরোলে কোন উপায় দেখছি না। 
- ইয়ার্কি হচ্ছে? চারটে মড়া পড়ে রইল। আমার পিপাসা মিটল না। বাতেলা ঝাড়ার সময় তো আকাশ উপড়ে খাওয়ার তাল করছিলেন। বাবা! সে কী তম্বি। আমার প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে জল খেলে মারা যেতে হবে। কত লেকচার মাইরি। কত কেতা! হাজার গণ্ডা সওয়াল ফ্লায়িং ডিস্কের মত ছুঁড়ে দিয়ে তারপর আবার নতুন র‍্যালা; সব ভাইকে বাঁচিয়ে দেব। বলি এ'সব কী? এরা এখনও ঠাণ্ডা হয়ে পড়ে আছে তো! 
- না না। বুঝতে পারছেন না। এক কেমিক্যাল মেশাতে অন্য কেমিক্যাল মিশিয়ে দিয়েছি জলে। কাজেই অ্যান্টিডোটটা কাজ করছে না। তাই বলছিলাম, জলটা আপনিও না খেলেই ভালো।
- সর্বনাশ। কী ফেরেব্বাজ লোক মশাই আপনি।
- আরে। তাই বলে জামা ধরে টানবেন? এই আপনি ধর্মরাজ?
- এ'সব ফালতু কথা ছাড়ুন! ভীম অর্জুন না থাকলে ধর্মকে প্রটেক্ট করবে কে? গেল গেল সব গেল। 
- ইয়ে জামাটা ছাড়ুন। মিটিং আছে, মাইরি। 
- তবে রে রাস্কেল?
- যুধিষ্ঠিরের মুখে খিস্তি?
- কাঁচাগুলো তো থলে থেকে বার করিনি এখনও। এদের না বাঁচালে রক্ষে নেই আপনার। এই বলে দিলাম।
- আহ! কী মুশকিল। বললাম তো। ভুল কেমিক্যাল মেশানো হয়ে গেছে। ল্যাবরটেরি থেকে ভুল মাল পাঠিয়েছে নিশ্চই। ব্যাচেও গড়বড় হতে পারে। আমার কিছু করার নেই। ফিরে গিয়েই একটা কড়া করে কমপ্লেইন লেটার লিখে দেব'খন। 
- কিছু করার নেই মানে? নিজের বাবাকে বলো এ'সব কথা।
- পাণ্ডু পুত্রের বাপ তুলে খিস্তি দেওয়ার রিস্ক নেওয়াই উচিৎ না। 
- মুখ সামলে মুখ সামলে। 
- শুনুন। শুনুন। আমায় খিস্তি করে কী হবে? কলার না হয় ধরলেন, ক্যালাতে পারবেন? পারবেন না। আপনি ভীম নন। কথায় চাবকাতে পারবেন? পারবেন না। আপনি কেষ্টা নন। আর এদিকে যা কেস; বিশেষ কিছু করা যাবে বলে মনে হচ্ছে না। তবে একটা চেষ্টা করে দেখতে পারেন। 
- কী?
- কাস্টোমার কেয়ারে কল করে বলুন কী ঘটেছে। টোল ফ্রি। 
- লাভ হবে?
- হবে না। তবু। মন হালকা হবে। 
- গেল গেল সব জলে গেল। 
- কী?
- সব। রাজ্য। পয়সাকড়ি। সব। এবার ঐ দুর্যোধন হারামজাদা ব্যসবাবুকে গ্রিপে নিয়ে নিজের পয়েন্ট অফ ভিউ ফলিয়ে মহাভারত লেখাবে। আমার ক্ষমতা থাকলে আপনাকে আমি খুন করতাম এখন। 
- ক্ষমতা আছে?
- দম থাকে তো জাস্ট ভীমকে জাগিয়ে দিন। কার কত ক্ষমতা দেখিয়ে দেব। 
- থাক। খুব হয়েছে। আচ্ছা, এবার আমি আসি?
- হায় হায়। এ ব্যাটা সব মাটি করলে। আমায় পথে বসালে। রাজা হয়ে পাশবালিশ আঁকড়ে জুয়া খেলে দিন কাটাব, সে আর এ জন্মে হল না।  
- মশায় । ভেবে দেখুন। ক্ষতি কি সত্যিই হয়েছে?
- ফের প্রশ্ন? জুতিয়ে দাঁত ভেঙ্গে দেব! গাম্বাট কোথাকার। 
- আহ! চটছেন কেন? ভেবেই দেখুন না। ক্ষতি হয়েছি কি?
- হয়নি? ভাই গেল। রাজ্য গেল।
- তাতে কী?
- তাতে কী? ব্যাটাচ্ছেলে সব ভাসিয়ে জিজ্ঞেস করা হচ্ছে তাতে কী?
- সব ভেসে গেছে?
- যায়নি আবার? অমন পেল্লায় ভীম, অমন ধারাল অর্জুন, অমন আর্দালি নকুল, অমন পিওন সহদেব। আহা। বড় দুঃখ গো। অমন রাজকোষ। আহা, বুক ফেটে যাচ্ছে জাস্ট। 
- এটুকুই সব? এ লিস্টের বাইরে আর কেউ নেই?
- হুম?
- আর কেউ নেই?
- না মানে...।
- মানে?
- আছে। মানে ওই আর কী!
- ওই আর কে?
- পানু। 
- পানু? 
- পাঞ্চালী। এটা বেডরুমের ডাকনাম। 
- তাই বলে পানু?
- মুখ ফসকে বেড়িয়ে গেছে। আহা। বড় ভালো মেয়ে। অর্জুন এই একটা কাজের কাজ করেছে। আহা। বড় ভালো মেয়ে। 
- ভালো লাগে? পানুকে?
- এই। বৌদি বলুন। 
- সরি। বৌদিকে ভালো লাগে?
- আমি ও-অন্ত প্রাণ। আহা। এত নরম। এত কোমল। এত ভালোবাসার। এত...।
- বুঝেছি। বুঝেছি। আর এলাবোরেট করতে হবে না। তা, এখনও মনে হচ্ছে সব মাটি?
- নাহ! মানে...আসলে...। 
- আসলে...?
- অর্জুন ভীম বড় বেশি ডিস্ট্র্যাক্ট করত ওকে জানেন। আর নকুল সহদেব কন্সট্যান্ট ঘ্যানরঘ্যানর। চাট্টি সুখ দুঃখের কথা যে বলব...। সময়ই পেতাম না। 
- রাজ্য চাই?
- রাজ্য কে? 
- ভাই?
- জন্মিলে মরিতে হবে, অমর কে কোথা কবে। 
- তাই তো। তবে আপনি বললে নতুন অ্যান্টিডোটের একটা চেষ্টা করতে পারি। 
- আপনার কী একটা মিটিং ছিল বলছেন? এই দ্যাখো। আপনার জামা খামচে দাঁড়িয়ে আছি তখন থেকে। নার্ভাস হলে আমার আবার ইয়ে থাকে না। বিশ্রী। গেল তো ইস্তিরি নষ্ট হয়ে? যাক। এবার বেলা থাকতে বেড়িয়ে পড়ুন দেখি। অন্ধকার হলে আবার বড় অসুবিধে। এদিকে দিনকাল যা পড়েছে।
- আসি তবে?
- দুগ্‌গা দুগ্‌গা! 

2 comments:

Moumita Dey said...

ja taa

Anonymous said...

যা,যা। দিল সত্যবাদিতার নড়া ধরে ঝাকিঁয়ে - কি লোক রে বাবা!