Monday, December 13, 2010

বড়া পাও বনাম আলুর চপ

আলোচনায়: ভেঙ্কট গুরু/সাম্য দত্ত

লেখক পরিচিতি:

ভেঙ্কট গুরু :
আপামর মুম্বাইকার এক তামিল বাংলা বিলাসীও বটে আদ্যোপান্ত ভারতীয় চাকুরে, ব্লগীয়ে ভালবাসেন রাস্কিন বন্ড, বিকেল বেলা ও আড্ডা

সাম্য দত্ত:
রাঁচী'র প্রবাসী বাঙালি কর্ম সূত্রে বর্তমানে চেন্নাইতে খাদ্য রসিক গাইয়ে, ব্লগীয়ে ভালবাসেন কথা বলতে এবং বন্ধুদের

অনুবাদ: বংপেন

(প্রথম পর্ব :ভেঙ্কট গুরু)

ভূমিকা


এমন এক শহরের মফস্বলি প্রান্তে বড় হয়েছি, যে শহর এক সময় 'বম্বে' ডাকে ঘুরে তাকাতো এই জন-মায়াবী বাস্তবতা খুব অল্প বয়স থেকেই আমায় সহজ ভাবে দুনিয়াদারি শিখিয়েছিলো রোজকার লোকাল ট্রেন সফরে কর্ম-ব্যস্ততা যখন যৌবনে ঠ্যালা দিল, তখন থেকেই এই শহর'এর ধমনী চিনতে শিখেছিলাম এই লোকাল ট্রেন সফর গুলো'তে, লক্ষ্য মানুষ'এর সন্নিধ্যে; যাদের সঙ্গে দিন শুরু হত এবং যাদের সাথে গৃহ-মুখি দৌড় দৌড়ে দিন শেষ করতাম ঠিক এই সময়ই এই শহরের নাগরিক হিসেবে নিজেকে আত্মস্থ করেছিলাম আপামর নাগরিক-খাদ্য বড়া-পাও'এর সাথে বড়া-পাও; যা কিনা এক সমগ্র শহুরে জাতির দৈনিক কর্ম-ব্যস্ততার মাঝে কখনো সকাল'এর জলখাবার, কখনো দুপুর রাত্রির গ্রাস, কখনো বা সন্ধ্যের ক্ষুধা তৃপ্তির সাজে; স্নেহ হয়ে নেমে আসে

এক পুরনো বন্ধুর সঙ্গে আলোচনার সূত্র ধরে মনে পড়ে যায় এম বি এ করবার সময় দিল্লীর চিত্তরঞ্জন পার্কে দুর্গা পুজোর সময় কিছু বাঙালি বন্ধুর সাথে ঘুরে বেড়ানোর এক সন্ধ্যে যাবতীয় বাঙালি খানার দোকানপাট'এর ভীড়ে একটা দোকানে যেন মনে হল বড়া-পাও বিক্রি হচ্ছে আর্কিমিডিও উত্তেজনা ইউরেকা বলতে যাব এমন সময় সহস্য নির্মমতায় আমার বাঙালি বন্ধুটি আমার ভুল ভাঙ্গীয়ে দিলো যে বস্তু'টি কে দেখে বড়া-পাও'এর বড়া ভেবে ভুল করেছিলাম তার কাছে গিয়ে নজর শ্যেণ করতেই বুঝতে পারলাম যে ব্যাপারটায় বাইরের কিছু মিল থাকলেও, সেটি আলাদা কতটা আলাদা বুঝতে এক টুকরো তুলে কামড় লাগালাম সেই হলো গিয়ে আমার এক-রাত্রিক আলু চপ'এর অভিজ্ঞতা আলু চপ, যা নাকি বঙ্গ জিহ্বা রস'এর অঙ্গ, কোলকাতার যে কোনও চৌমাথা থেকে বাংলার গ্রাম-গঞ্জ'এর যে কোনও বাজারে তেল-ভরা কড়াইয়ে যার গতায়াত সর্বত্র
মুন্নী-শীলার পেলবতায় তর্ক সুখ আটকে রেখে দেশ এবং মানবতার কি বিন্দু মাত্রও শ্রীবৃদ্ধি সম্ভব? আসুন সহ-নাগরিকেরা, জীবনের আরও নিবিড় স্পর্শ ও টানাপোড়েন গুলো নিয়ে আমরা মনসংযোগ করি, তর্ক জুড়ি জীবন'এর অতি-বাস্তবতাদের নিয়েআসুন, আমরা হিসেব কষে জেনে নিই,মানব জিহ্বাকে কে বেশি তড়িত্‍ স্পর্শ করেছে
এক নিরীহ ও একান্তই এক মধ্যবিত্ত্ব তুলনামূলক আলোচনায় ডুব দেওয়া যাক এইবারে, তুলনার পাত্ররা কারা? বড়া-পাও এবং আলুর চপদুই'ই বাহ্যিক রূপে প্রায় কাছাকাছি, দুটোই মেদ-মেদূর আলু দিয়ে তৈরি, ডুবো তেলে ডুব দিয়ে দুই'এরই আত্ম-প্রকাশ কিন্তু মননে এবং সত্ত্বায় এই দুটি খাদ্য ভিন্য মেরু'তে বিচরন করে মুম্বাইকর সূত্র ধরে বড়া-পাও'এর হয়ে পটভূমি রচনা করলাম আমি, নিরপেক্ষতার স্বার্থে আলুর চপ নিয়ে বিশ্লেষণে বসবেন আমার প্রিয় বন্ধু সাম্য দত্ত, যিনি নিজে প্রবাসী হয়েও, রসনার দিক থেকে এক প্রবল-বাঙালি

বড়া-পাও বনাম আলুর চপ

অথ বড়া-পাও কথা
বড়া-পাও মুম্বাইয়ের অলিতে-গলিতে-রাজপথের সবচেয়ে সহজলভ্য আম-জনতার খাদ্য গরম গরম পরিবেশিত হয়ে, দৈনিক ব্যস্ততার মাঝে, যা লক্ষ্য-কোটি পাকস্থলীদের শান্ত করে আসছে সেই কবে থেকে পকেটে কম তোলপাড় তুলে পেট'কে সুস্বাদু টোটকায় ভরিয়ে তোলে এই বড়া-পাও...এক নম্বর প্লাটফর্ম থেকে চার নম্বরের দিকে দৌড়ের মাঝে; হয়ত অফিস, হয়ত টিউশনি, হয়তো বা ক্রিকেট প্র্যাক্টিসের জন্যে...
বড়া পাও চিরে দেখুন:
সেদ্ধ আলু কাঁচা লঙ্কা-ধনে-হিং-হলুদ-শুকনো লঙ্কা গুড়ো সহ চটকে, নিটোল গোল্লা পাকিয়ে, বেসনে চুবিয়ে ডুব তেলে ভাজা এই ভাবে আত্ম-প্রকাশ বড়া' বড়া ব্যাপারটা নিজ গুণে খাওয়া যেতেই পারে, তবে এর পূর্ণ স্বাদ-সত্ত্বা এক মাত্র পাও'এর সাথেই প্রকাশ পায়পাও হল পাউ-রুটির পশ্চিমা অবতার, যার মধ্য ভাগ চেরা যাতে তার মধ্যে বড়া আশ্রয় নিতে পারেপাও কে মাখিয়ে নিন মিঠে চাটনি, ঝাল চাটনী এবং রসুনের শুকনো চাটনিতে এর পর এই রমণীয় চাটনি-রসাল পাও'এর মাঝে বড়া এসেই অমৃত-সৃষ্টি হুড়মুর ছুটতে-ছুটতে খান, বা ভীড়'এর মাঝে শ্বাস গুছিয়ে নিতে নিতে কড়া 'কাটিং' চা হাতে এর স্বাদে বুঁদ হয়ে যান আর এর সাথে যদি জুটে যায় বম্বের বৃষ্টি, তবে নিশ্চিত একটা আলপটকা রোমান্স আপনার বুক ছুয়ে পাকস্থলীতে মিশে যাবে
মুম্বাইয়ের সব চেয়ে নামী বড়া-পাও-স্থলগুলির মধ্যে অন্যতমগুলির ঠিকানা হলো ভিল্যে পারলে, ঠিক নারসী মঞ্জি আর মিথি ভাই কলেজের সামনে নারসী মঞ্জি'তে যে কয় বছর কাটিয়েছি, সেই কয় বছরে আর কাছে এসে পড়েছি এই বড়া-পাও'এর এখানকার বড়া-পাও'এর দোকানগুলির একটা অভিনবত্ব ছিল; এরা পাও'এর সাথে অন্যান্য চাটনিগুলোর সঙ্গে এক টুকরো আমূল মাখন ছড়িয়ে দিত এবং ফলত পাও ব্যাপারটা হয়ে উঠতো মাখন স্পর্শে অতি রমণীয় ভাবে সিক্ত চাটনি আর মাখনের আদর মাখা সেই বড়া-পাও যখন ধোঁয়া সহ মুখে যেত; আহ, জিহ্বে যেন রমন-বিস্ফোরণ ঘটে যেতো
মুম্বাইয়ের ব্যাবসা বাজারে বড়া-পাও'ও ব্র্যান্ড অর্জন করেছে এবং সেইসব ব্র্যান্ড সফলভাবে নিজেদের বানিজ্যিকরণ ঘটিয়েছে; "জাম্বো কিং", "গোলি বড়া পাও", "শিব বড়া-পাও"; কত অবতারেই বড়া-পাও আজ বম্বে আলো করে আছে
বড়া-পাও'এর নিবিড় সৌন্দর্য কোথায় জানেন? আশায়! এ শহরের শিরা-উপশিরায় কত মানুষ হিংস্র প্রতিকুলতা মাথায় নিয়ে প্রতিনিয়ত মাথা উঁচু করে টিকে আছে; শত অভাবেও একটা বড়া-পাও'এর দোকান দিয়ে কত মানুষ রোজ নিজেদের এলুমিনিয়ামের থালা ভরে নেন রুটি-তরকারী-আচারে বড়া পাও, যে সবার বড় প্রয়োজনের;যে কোনও প্রান্তে, যে কোনও জটলায়; এর বিক্রি তো হবেই, তাই না? আমি ব্যক্তিগত ভাবে চিনি এমন এক বন্ধুকে যিনি এক সময় ছোট্ট এক বড়া-পাও'এর দোকান শুরু করে আজ একটি পাঁচ-তারা হোটেলের শেফ
স্নেহের বড়া-পাও কে এই মুম্বাইকারের সেলাম
(দ্বিতীয় পর্ব: সাম্য দত্ত)

আলু চপ চরিত
এই তুলনাটা অনেকটা ডিস্কভারী চ্যানেলের ওই অনুষ্ঠান গুলোকে মনে করিয়ে দেয়, ওই যে যেখানে বিবিধ জানোয়ারদের গতি-প্রকৃতি নিয়ে চুল চেরা গবেষণা চালিয়ে যান বিশেষজ্ঞরা যাক, আলুর চপ নিয়ে আমায় বলতে হবে, এর চেয়ে ভালোবাসার আর কি হতে পারে আগেই যেমন আমার বন্ধু বলেছেন যে বড়া-পাও'এর বড়া আর আলুর চপের মধ্যে বাহ্যিক মিল আছে বটে, তবে সেটুকু নিতান্ত বাহ্যিকই বটে; ঠিক যেমন ধরুন অঞ্জন দত্ত ও নচিকেতা; দাঁড়ি-গীটারে-জীবনমুখিতে মিল আছে বটেই; তবে সেই মিলটুকু নিতান্তই আবরনের, আত্মার নয়
ভিতরের পুরের স্বাদে বড়া-পাও এবং আলুর চপ আদ্যোপান্ত আলাদা; সেদ্ধ আলু-পেঁয়াজ-নুন-লঙ্কা এবং আর কিছু ঘরোয়া মসলা মিলে মেখে, সাঁতলে এর পুর তৈরি হয়; মাখার গুনেই হোক বা বড়া'র তুলনায় কড়া ভাজার গুনেই হোক, এ দুয়ের স্বাদ বেশ আলাদা তাছাড়া কামড় দিলে বেশ টের পাবেন যে আলুর চপটি একটু বেশি মুচ-মুচে, গায়ের রংটিও সামান্য বেশি কড়া অনেক সময় আলুর চপ'এর দোকানে সিঙ্গারাও পাওয়া যায় কারণ আলুর চপের সঙ্গে পুরের রসদের কিছু মিল আছে, তবে আলুর চপের জনন্যে আলু কে একটু বেশি মাখতে হয়; আলুর চপ ভারী স্নেহময় কিনা বড়া যেমন পাও'এ পূর্ণ হয়, আলুর
চপের তেমনি কোনও বাঁধন নেই নিশ্চিন্তে একলা আলুর চপ'এর রসাস্বদন করতে পারা যায় তবে হ্যাঁ, অনন্য হরেক খাওয়ারের সঙ্গে মিলে অনাবিল হয়ে উঠতে পারে আলুর চপ সব চেয়ে বিস্ফোরক জুটি অবশ্যই আলুর চপ-মুড়ি (মুড়ি যদি সামান্য সর্ষের তেলে মাখা হয় তাহলে তো কথাই নেই) তবে কোনও সঙ্গত ছাড়াও, ভাজা-পড়ার জগতে আলুর-চপ'এর দৃপ্ত-আবেদন সর্বজনবিদিত এবং আস্বাদিত
আলুর চপ কিছুতেই হুড়মুরিয়ে গেলার বস্তু নয়আলুর চপের সাথে বাঙালির বহু যুগের আড্ডা-বিলাস, বহু সন্ধ্যের আলসেমো, বহু গল্প মাখা বৃষ্টি বিকেল আছে বাংলার গরিমসি আমেজের সাথে নির্মেঘ মিশে আছে আলুর চপ, আর কোনও খাদ্যই হয়তো বাঙালির এতটা স্বভাব-আয়ত্ব নয় সেই জন্যেই হয়তো আজ কলকাতায় এলেই প্রথম ঝাঁপ রোল-ফুচকায় নয়; আলুর চপেই দিয়ে থাকি
আলুর চপ যদি পূর্বের প্রতিনিধি হয়ে তবে বড়া-পাও একান্তই পশ্চিমা বড়া-পাও যদি ছুট-ছুট ব্যস্ততা হয়ে তবে আলুর চপ হয়তো গা-এলানো ভালোবাসা

3 comments:

MishtiZaa said...

marvellous!! :-)

Pathikrit Bandyopadhyay said...

Thank you Mr.Mukherjee for visiting and commenting on my blog...your blog posts are very interesting too!

The Rapist said...

KFC'র মতন পাড়ায় পাড়ায় চালু হোক BFC (Bengal Fried Chop)!